আমরা ফাঁকা ভুলি নয়, জনগণের জন্য কাজ করি——শুভেচ্ছা বিনিময়ে এমএ মান্নান

আলাল হোসেন দক্ষিন সুনামগঞ্জ :
অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, ‘এ দেশের উন্নয়ন হয়েছে আরো হবে। তবে আওয়ামীলীগ সরকারকে, শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রাখতে হবে। সরকারের কাজের যতেষ্ট সুযোগ আছে। দয়া করে এ সুযোগকে বন্ধ করে দেবেন না। আগামী নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিয়ে আবার আমাদের ক্ষমতায় পাঠান এই অঞ্চলের ব্যাপক উন্নয়ন হবে। বিরোধীতা করে কেউ আওয়ামীলীগের উন্নয়নের ধারা থামাতে পারবে না। সেই ভরসা আওয়ামী লীগের উপর আপনারা রাখতে পারেন। এম এ মান্নান বলেন, ‘কিছু মানুষ আছে ঢাকায় গিয়ে আমার বিরোদ্ধে অপপ্রচার করে। যারা আমার বিরোদ্ধে অপপ্রচার করে তারাই আমার বিরোদ্ধে কোনো দূর্নীতির অভিযোগ করতে পারবে না। আপনারা গর্ব করে বলতে পারেন, ‘আমার এমপি চোর নয়।’ পাগলা এলাকার প্রসঙ্গ টেনে এনে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমি সব সময় পাগলার উন্নয়নে কাজ করেছি। একটি মহল তা প্রচারণায় কৃপণতা করেছে। এই কয়েকদিনে ব্রিজ, কার্লভার্ড, রাস্তাসহ প্রচুর কাজ করিয়েছি। পাগলা স্কুলকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাধ্যমে সরকারি করিয়েছি। পাগলার রাস্তাঘাটের উন্নতি করেছি এবং আরো করবো। পাথারিয়া ব্রিজের কাজ চলছে। এর পরেই পাগলার মহাসিং নদীর উপর সেতু করবো। চিকারকান্দিসহ পাঁচ গাঁওয়ের মানুষ পাগলায় এই সেতু ব্যবহার করবে।’ পাগলাবাসীকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘আপনারা নির্বাচনে শেখ হাসিনার নৌকার উপর ভরসা রাখুন। আপনাদের পাগলা দক্ষিণ সুনামগঞ্জের বানিজ্যিক রাজধানী হবে।’ এম এ মান্নান আরো বলেন, ‘আমরা মিথ্যাচার করিনা। ফাঁকাবুলি মারি না। জনগনের জন্য, দেশের উন্নয়নের জন্য কাজ করি।’ ঈদের দিন (শনিবার) দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পাগলা বাজারে ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে ইমাদ রেস্টুরেন্টের চা চক্র ও ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। চা চক্র ও শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল হক।
এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের ৭ নং ওয়ার্ডের সদস্য জহিরুল ইসলাম জহুর, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী, প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের একান্ত রাজনৈতিক সহকারি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-দফতর সম্পাদক হাসনাত হোসেন ও সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম শিপন।

অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা আবদুল মছব্বির, আইয়ূব উদ্দিন বুদ্ধি, আবদুস সামাদ, হাবিবুর রহমান, ডা: জিল্লুল হক, নির্মল চন্দ্র দাশ, আবুল হোসেন, নূর ইসলাম, রজব আলী, আবদুল হান্নান, রহিম নূর, অধীর পাল, পিন্টু পাল, হিরেশ পাল, রনজিত পাল, নগেন্দ্র কুমার দাশ, মেম্বার মহি উদ্দিন সাদির, ব্যবসায়ী নেপাল রায়, আফরোজ আহমদ, ধীরেন্দ্র পাল ধীরু, তমেশ পাল, অপন চক্রবর্তী, বিরেশ রুদ্র পাল, মখলিছুর রহমান, নূর উদ্দিন, মিজানুর রহমান মিজান, রাজা মিয়া, সাবেক মেম্বার সাহেব আলী, উপজেলা যুবলেিগর সাবেক যুগ্ম-আহŸায়ক কামরুল ইসলাম, সোহেল রানা তালুকদার, পাগলা হাইস্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা কমিটির শিক্ষানুরাগী সদস্য বদরুল আলম টিপু, উপজেলা ছাত্রলীগরে সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেন তালুকদার ও ছাত্রলীগকর্মী মো. রমজান আলী প্রমুখ।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :395 বার!

JS security