এম‌পিও‌ স্থগিত হওয়ায় শিক্ষ‌কের আত্মহত্যা-Global-Sylhet

এম‌পিও‌ স্থগিত হওয়ায় শিক্ষ‌কের আত্মহত্যা
সাতক্ষীরা প্রতিনিধি:-সাতক্ষীরার তালা উপজেলায় মান্থলি পে অর্ডার (এমপিও) থেকে নিজের নাম বাদ পড়ায় লোকলজ্জার ভয়ে কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করেছেন বিধান চন্দ্র ঘোষ (৪৫) নামের এক স্কুলশিক্ষক। মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।বিষপান করলে রাতেই বিধান চন্দ্র ঘোষকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানেই বুধবার সকালে তার মৃত্যু হয়।বিধান চন্দ্র স্থানীয় সেনেরগাঁতি মাধ্যমিক বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিষয়ের শিক্ষক ছিলেন। তিনি দৌলতপুর গ্রামের মৃণাল কান্তি ঘোষের ছেলে।বিদ্যালয় ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ২০০২ সালের ২৩ জুন শিক্ষক হিসেবে যোগদানের পর থেকে বিধান চন্দ্র সরকারি বিধি মোতাবেক নিয়মিতই বেতন, ভাতা পেয়ে আসছিলেন। কিন্তু গত প্রায় এক বছর ধরে বিদ্যালয়ের জনবল কাঠামো বিষয়ক জটিলতার কারণে এমপিও থেকে নাম বাদ পড়ায় বেতন-ভাতা পাচ্ছিলেন না তিনি। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করেও কোনো সন্তোষজনক জবাব পায়নি বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এদিকে প্রায় বছরখানেক বেতন-ভাতা ছাড়াই শিক্ষকতা করে যাচ্ছিলেন বিধান। কিন্তু পরিবারের আর্থিক সংকট ও নতুন করে বেতন ছাড় না হওয়ার মানসিক চাপে শেষমেশ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কীটনাশক খেয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শহিদুল ইসলাম জানান, বিধান চন্দ্র ঘোষ ২০০২ সাল থেকে শিক্ষকতা করে আসছিলেন। কিন্তু ২০১৬ সালে বিদ্যালয়ের মিনিস্ট্রি অডিটের সময় তার সনদ সংক্রান্ত ত্রুটি দেখা যায়। তিনি নিয়মিত বেতনও উত্তোলন করে আসছিলেন। কিন্তু চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসের এমপিও শিটে তার নাম না থাকার বিষয়টি জানাজানি হলে মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে লোকলজ্জার ভয়ে বিষপান করেন তিনি। পরিবারের লোকজন তাৎক্ষণিক তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল ৮টার দিকে তার মৃত্যু হয়।এ ব্যাপারে সেনেরগাঁতি মাধ্যমিক বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল মজিদ জানান, মঙ্গলবার রাতে বিধান বাজার থেকে কীটনাশক কিনে আনেন এবং সবার অজান্তে খেয়ে ফেলেন। পরে বিধানকে বাড়ির পাশে একটি হলুদ বাগানে পড়ে থাকতে দেখা যায়।বিধান চন্দ্রের ময়নাতদন্ত এরই মাঝে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল ইসলাম। তিনি বলেন, এমপিও শিটে নাম না থাকায় পরিবার ও অন্যান্যদের সামনে মুখ দেখাতে লজ্জা পাবেন বলে বিষপান করেন বিধান চন্দ্র। পরে তার মৃত্যু হয়।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :287 বার!

error: Content is protected !!
JS security