কোর্ট পয়েন্টে নির্বাচনী সমাবেশ পন্ড, আটক ৬০

সিলেট প্রতিনিধি:- অন্যায় জুলুমের বিচার সিলেটবাসীর কাছে দিলাম মুক্তাদির সিলেট-১ আসনে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের সর্বশেষ নির্বাচনী সমাবেশ পুলিশী বাধার মুখে পন্ড হয়ে গেছে। কোর্ট পয়েন্ট ও আশপাশের এলাকা থেকে অন্ততঃ ৫০ জন নেতাকর্মী ও সাধারণ পথচারীকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় পুলিশী বাধার মুখে সর্বশেষ নির্বাচনী সমাবেশ না করেই ফিরে যেতে বাধ্য হন খন্দকার মুক্তাদির।

এর আগে সন্ধ্যা ৬টার দিকে সিলেট নগরী আম্বরখানা নূরে আলা কমিউনিটি সেন্টারে খন্দকার মুক্তাদিরের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের আরো অন্ততঃ ১০ জন নেতাকর্মীকে আটক করে পুলিশ ও বিজিবি।
পুলিশী বাধার মুখে সমাবেশ করতে না পেয়ে কোর্ট পয়েন্টে তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির বলেন, আওয়ামী লীগের এই জুলুম আল্লাহ সহ্য করবেনা। এই অন্যায় জুলুমের বিচার সিলেটবাসীর কাছে দিলাম। ৩০ তারিখ ধানের শীষ প্রতীকে সিলেটবাসী তাদের গণরায় ব্যক্ত করে এই অন্যায় অবিচারের জবাব দেবেন, ইনশাআল্লাহ।
খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির বলেন, কোন ধরনের উস্কানী ছাড়াই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর আমার প্রধান নির্বাচনী কার্যালয় ইলেকট্রিক সাপ্লাই রোডস্ত নুরে আলা কমিউনিটি সেন্টারে তল্লাশীর নামে পুলিশ-বিজিবি তান্ডব চালিয়েছে। কার্যালয়ে কর্মরত নিরপরাধ নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি বলেন, বাদ মাগরিব কোর্ট পয়েন্টে আমার পূর্ব নির্ধারিত শেষ নির্বাচনী সভা পন্ড করে দিয়ে সেখান থেকে প্রায় ২৫ জন নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। আমার সাথে পুলিশ খুব বাজে আচরণ করেছে। আমার নিশ্চিত বিজয় নস্যাত করতেই প্রশাসনকে আমার বিরুদ্ধে নগ্নভাবে লেলিয়ে দেয়া হয়েছে।তিনি বলেন, বাকশালীদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে ধানের শীষের সমর্থনে সিলেটে জনতার যে স্রোত নেমেছে তা গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জনতার এই বাধঁভাঙ্গা স্রোতকে রুখে দেয়ার সাধ্য কোন অপশক্তির নেই। ভয়কে জয় করে ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে শুধু ভোট প্রদান করে নয়, ভোটকে রক্ষাও করতে হবে। ইতিহাস স্বাক্ষী সিলেটের পূণ্যভুমিতে ভোট লুটপাটকারীদের শেষ রক্ষা হয় নাই। ৩০ ডিসেম্বর আমরা বিজয় নিয়েই ঘরে ফিরবো। ইনশাআল্লাহ।সবর্দলীয় ছাত্র-ঐক্যের উদ্যোগে মতবিনিম ঃ ধানের শীষের সমর্থনে বৃহস্পতিবার সকালে নগরীর জিন্দাবাজার এলাকায় ছাত্রদল ও ছাত্রশিবির নেতৃত্বাধীন সর্বদলীয় ছাত্রঐক্যের উদ্যোগে গণসংযোগ অনুষ্টিত হয়। গণসংযোগ শেষে হাজার হাজার ছাত্র জনতার উপস্থিতিতে কোর্ট পয়েন্টে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।নগরীর তাঁতিপাড়া এলাকা থেকে শুরু করে জিন্দাবাজার পয়েন্ট হয়ে বন্দরবাজার কোর্ট পয়েন্টে গিয়ে অনুষ্ঠিত সংক্ষিপ্ত সমাবেশে খন্দকার মুক্তাদির বলেন, প্রশাসনের গুটিকয় লোকের পক্ষপাতের কারণে সিলেটে প্রশাসনের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুন্ন হচ্ছে। সরকারী দলের চাপে পুলিশ প্রশাসনের কিছু বিপথগামী লোক ধানের শীষের সমর্থকদের ৩০ তারিখ ভোট কেন্দ্রে না যাবার হুমকী দিচ্ছে। ইনশাআল্লাহ, সকল ভয়কে জয় করে সিলেটবাসী ফজরের নামাজের পর ভোট কেন্দ্রে যাবেন। ইনশাআল্লাহ, বিকেলের বিজয় মিছিলটি আমাদেরই হবে।সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্যজোটের নেতা ও সিলেট জেলা ছাত্রদল সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমন, মহানগর সভাপতি সুদীপ জ্যোতি এষ ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বি আহসান, সিলেট মহানগর ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী ফরিদ আহমদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন হোসাইন, সিলেট জেলা পশ্চিম শিবিরের সভাপতি মিয়া মোহাম্মদ রাসেল ও জেলা পূর্ব শিবিরের সেক্রেটারী রুকন উদ্দিন দুপুরে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির নগরীর আম্বরখানা থেকে চৌকিদেখি পর্যন্ত গণসংযোগ করেন। এ সময় তার সাথে ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ড. এনামুল হক চৌধুরী, সিলেট মহানগর ২৩ দলীয় জোটের সদস্য সচিব ও মহানগর জামায়াতের নায়েবে হাফিজ আব্দুল হাই হারুন, সিলেট মহানগর বিএনপির উপদেষ্টা আব্দুস সালাম বাচ্চু, সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বদরুদ্দোজা বদর, মহানগর বিএনপির যুগ্ম এমদাদ হোসেন চৌধুরী, সিলেট মহানগর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী মো: শাহজাহান আলী, বিএনপি নেতা সাবেক পৌর কমিশনার কামাল মিয়া, শিক্ষক নেতা অধ্যাপক ফরিদ আহমদ, শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, মহানগর বিএনপির কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মন্নান পুতুল, মহানগর বিএনপি নেতা সাহেদ আহমদ চমন, জামায়াত নেতা মফিজুল ইসলাম মানিক, বিএনপি নেতা চৌধুরী মোহাম্মদ সুহেল, জেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক জামিল আহমদ প্রমুখ।হিন্দু মহাজোট নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় ঃ এদিকে, বুধবার রাতে বাংলাদেশ হিন্দু মহাজোট, সিলেট জেলা শাখার নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করেন সিলেট-১ আসনে বিএনপি ও ২৩ দলীয় জোট মনোনীত প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির।এ সময় উপস্থিত ছিলেন হিন্দু মহাজোট সিলেট শাখার সভাপতি সমীরণ দাস, সাধারণ সম্পাদক অভিজিৎ দাস, যুগ্ম সম্পাদক রাজীব দাস, রাম দাস, রুবেল দাস, সঞ্চয় দাস, বিপ্লব কর, কনক দাস, রজত দাস, রঙ্গেস দাস প্রমুখ। 

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :655 বার!

JS security