দিরাইয়ে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ইমরানের নাটকীয় কাহিনী

নিজস্ব প্রতিবেদক :- আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দিরাইয়ে জমে উঠেছে নির্বাচনী আমেজ। উপজেলা চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে সকল প্রার্থীগণ কাধে কাধে কাধ মিলিয়ে সবাই চালিয়ে যাচ্ছেন নির্বাচনী প্রচারণা। এখন পর্যন্ত কেউ কারো সাথে নির্বাচনের মাঠে বাক বিতন্ডা করেন নি ৷ সবাই নিজ নিজ দায়িত্বে দিরাইয়ের রাজনৈতিক সম্প্রতি বজায় রেখে নির্বাচনী প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। আজ বুধবার ৬ ই মার্চ কতিপয় অনলাইন নিউজ পোর্টালে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে যে, দিরাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান পদে ইমরান আহমদ নামের এক প্রার্থীর সাথে একজন প্রবীন শিক্ষকের অশালীন আচরণ নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে৷ সংবাদের প্রকাশের পর ঘটনাটি সত্য মিথ্যা না জেনে দিরাইয়ের সচেতন মানুষজন চমকে উঠেন। অনেকেই বিষয়টি না জেনে হতাশার মাঝে ডুবে আছেন। অনেকের ধারণা সাবেক অধ্যক্ষ আব্দুল হান্নান চৌধুরী একজন ভালো মানুষ, উনার দ্বারা এই সমস্ত কর্ম কান্ড আশা করা যায় না। নিশ্চয়ই ইহা একটি সাজানো নাটক। ইমরান আহমদের সাথে যে ব্যাক্তি অশালীন আচরণ করেছেন বলে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে,। উনি একজন আদর্শিক ব্যাক্তি ও সফল শিক্ষক, উনার সাথে এই বিষয়টি নিয়ে কথা বললে ,তিনি বলেন,বিষয়টি হাস্যকর সে আমার একজন ছাত্র আমি তার সাথে এরকম আচরন করবো বলে প্রশ্নই উঠে না। মোহন যে ভাবে আমার ছেলে সমতুল্য সে ও আমার একজন ছেলে সমতুল্য। আমি তো, তার সাথে এরকম আচরণ করিনি। এসব খবর প্রকাশ করা অতি নিন্দনীয়। এই সমস্ত খবর প্রচারে শান্ত সমাজে অশান্তি সৃষ্টি হয়। প্রায় অর্ধশাতিক প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানান, ভাইস চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী মোহনের অফিসে শান্ত ভাবে বসা ছিলেন, সাবেক দিরাই সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল হান্নান চৌধুরী, এসময় ইমরান তার লিফলেট নিয়ে প্রবেশ করলে তিনি তার সাথে কোন কথাই বলেন না। ইমরান আহমদ মোহনের জনপ্রিয়তার প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে, নিজেকে সাধারণ ভোটারদের মাঝে প্রকাশ করতে এরকম নাটকীয় কাহিনী করেন। এদিকে অধ্যক্ষ আব্দুল হান্নান চৌধুরীকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ সংবাদ প্রকাশের পর দিরাইয়ের সুশীল সমাজের অনেকেই তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান ।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :929 বার!

JS security