নানীকে চেতনা নাশক ওষুধ খাইয়ে নাতনিকে অপহরণ: অপহরণকারী গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার :- গাজীপুর চান্দুরা চৌরাস্তা থেকে ১০ বছরের এক কিশোরীকে অপহরণ করার ১২ দিন পর তাকে সিলেট থেকে উদ্ধার করেছে র‍্যাব। এ সময় অপহরণকারীকে ও গ্রেফতার করা হয়েছে।

এর আগে গত ৩১ অক্টোবর গাজীপুর থেকে অপহরণ করে তাকে সিলেটে এনে ধর্ষণ করা হয় ও পরিবারের কাছে মুক্তিপণ দাবি করা হয় বলে জানায় র‍্যাব-৯।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) মধ্যরাতে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলাকার নিশ্চিন্তপুর এলাকায় র‍্যাব-৯ এর সিনিয়র এএসপি সত্যজিত কুমার ঘোষের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে অপহৃত বালিকাকে উদ্ধার করা হয়।

এসময় অপহরণকারী তাহের আলী (২০) নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেফতার তাহের আলী অপহরণকারী চক্রের সদস্য বলে জানিয়েছে র‍্যাব। সে নিশ্চিন্তপুরের মুজিবুর রহমানের ছেলে। অপহরনের পর সে ওই কিশোরিকে ধর্ষণ করে বলেও জানায় র‍্যাব-৯।

সিলেটে র‍্যাব-৯ এর সদর দপ্তরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মেজর শওকাতুল মোনায়েম এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, গত ৩১ অক্টোবর নানীর সাথে কেনাকাটা করতে বের হয় অপহৃত এ বালিকা। কেনাকাটায় বেরোনোর পর ওই বালিকা ও তার নানীকে ফুসলিয়ে পাশের একটি রেস্টুরেন্টে নাস্তা করাতে নিয়ে যায় দুই অপরিচিত যুবক। এসময় নাস্তার সাথে চেতনা নাশক ওষুধ খাইয়ে দেয় তারা। পরে নানীর জ্ঞান ফিরলে দেখতে পান নাতনি পাশে নেই। নিজের মোবাইল ফোনও নেই। এরপর নানী পাশের আরেকজনের মোবাইল ফোন থেকে নিজের মোবাইলে ফোন দিলে অপহরণকারীদের একজন কল ধরে নাতনিকে ফিরিয়ে দিতে দুই লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এ ব্যাপারে গত ৭ নভেম্বর নানী বাদী হয়ে গাজীপুরের বাসন থানায় একটি মামলা করেন।

মেজর শওকাতুল মোনায়েম বলেন, মঙ্গলবার মধ্যরাতে র‍্যাব-৯ এর সিনিয়র এএসপি সত্যজিত কুমার ঘোষের নেতৃত্বে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার নিশ্চিন্তপুর থেকে ওই বালিকাকে উদ্ধার করে র‍্যাব। এসময় কাহের আলী (২০) নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাহের অপহরণকারী চক্রের একজন সদস্য।

মেজর শওকাতুল মোনায়েম বলেন, উদ্ধারের পর জিজ্ঞাসাবাদে অপহৃত বালিকা তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সে।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :175 বার!

JS security