বাঁশঝাড়ে বস্তাবন্দি ছয় টুকরো লাশ, ডাস্টবিনে মাথা

গ্লোবাল ডেস্কঃ- গাজীপুরের শ্রীপুরে ছয় টুকরো করা এক কারখানা শ্রমিকের বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার নাম রফিকুল ইসলাম। নিখোঁজের দুই দিন পর বাড়ির পাশের একটি বাঁশঝাড়ের পাশে বস্তাবন্দি অবস্থায় টুকরো করা মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করা মাথাটি উদ্ধার করা হয় ডাস্টবিন থেকে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রীসহ দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত রফিকুল ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার আব্দুল লতিফের ছেলে। স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে শ্রীপুর পৌরসভার মাস্টারবাড়ি এলাকার আব্দুল হাইয়ের বাড়িতে বসবাস করতেন তিনি। শ্রীপুর পৌরসভার ‘হাউ আর ইউ’ কারখানায় কাজ করতেন তিনি। তার স্ত্রী জেবুননেছা মেঘনা কম্পোজিট কারখানায় শ্রমিকের কাজ করেন। নিহত রফিকুলের পাশের রুমের ভাড়াটিয়া কুলছুম বেগম জানান, স্ত্রী-কন্যা নিয়ে চার বছর ধরে আব্দুল হাইয়ের বাড়িতে থাকতেন রফিকুল। স্ত্রী মোবাইলে অন্য পুরুষের সঙ্গে কথা বলেন বলে প্রায়ই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হতো। গত বুধবার থেকে রফিকুল নিখোঁজ বলে জানায় তার স্ত্রী। কিন্তু থানায় কোনো অভিযোগ করেননি। শুক্রবার বিকালে স্থানীয় লোকজন বাড়ির পেছনে একটি বাঁশঝাড়ের পাশে রক্তমাখা বস্তা দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে পুলিশ গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে। এছাড়া বাড়ির ভেতরে ডাস্টবিন থেকে উদ্ধার করা হয় মাথাটি। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের স্ত্রী জেবুন নাহার ও মিতি নামে এক স্বজনকে আটক করে পুলিশ।

শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক আমিনুল বাহার বলেন, বস্তাবন্দি করা মরদেহটি কয়েকটি টুকরো করা হয়েছিল। তার অদূরেই শরীরের বিচ্ছিন্ন বিভিন্ন অঙ্গ ছড়িয়ে ছিল। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :338 বার!

JS security