বার্সাকে নেইমারের দাম বলে দিল পিএসজি

স্পোর্টস ডেস্ক:- নেইমার ফিরতে চান বার্সেলোনায়, ক্লাবটিও তাকে চায়, তারপরও কেন দলবদলটা সম্পন্ন হচ্ছে না? অচলাবস্থাটা তৈরি হয়েছে মূলত ট্রান্সফার ফি নিয়ে। প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি) নেইমারকে যে অর্থের বিনিময়ে বিক্রি করতে চায়, সেটা জেনেও বার্সা তাদেরকে বেশ কম অঙ্কের প্রস্তাব দিয়েছিল। আবার নেইমারকে পেতে বার্সেলোনা নতুন এক প্রস্তাব দিলেও সেটি ফিরিয়ে দিয়েছে পিএসজি। তবে সেই নাটকের অবসান ঘটতে পারে আজ। কারণ নেইমারের সঙ্গে চুক্তির বিষয় নিয়ে আজ মঙ্গলবার দুপুরেই যে হতে যাচ্ছে পিএসজি ও বার্সেলোনার চূড়ান্ত বৈঠক।

সত্যিই তাই। নেইমারের জন্য ফাইনাল প্রস্তাব নিয়ে এরই মধ্যে প্যারিসে পৌঁছে গেছেন বার্সেলোনার তিন সদসের প্রতিনিধি দল। নেইমারকে ন্যু-ক্যাম্পে ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করছেন বার্সার সাবেক ফরাসি ডিফেন্ডার এরিক আবিদাল। নেইমার, তার এজেন্ট এবং পিএসজি কর্তাদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন তিনিই।

স্বাভাবিকভাবেই বার্সার তিন সদস্যের প্রতিনিধি দলে রয়েছেন আবিদাল। তার সঙ্গে আছেন বার্সার অন্য দুই পরিচালক অস্কার গ্রাউ এবং হাভিয়ের বোরদাসও। বার্সার সভাপতি জোসেফ মারিয়া বার্তোমেউয়ের সঙ্গে চূড়ান্ত শলাপরামর্শ করেই ফাইনাল প্রস্তাব নিয়ে প্যারিসের পথে পা বাড়িয়েছে বার্সার প্রতিনিধি দল। দুপুরেই বার্সার প্রতিনিধি দল বৈঠকে বসবেন পিএসজি কর্তাদের সঙ্গে।

কিন্তু গণমাধ্যমের যা আভাস, তাতে পিএসজি-বার্সার এই চূড়ান্ত বৈঠকও অকার্যকর হবে বলেই মনে হচ্ছে! বৈঠকে দুই দলের কর্তারা যে দর কষাকষির যুদ্ধেই লিপ্ত হবেন, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু দুই দলের চাহিদার মধ্যে যে বিস্তর ফারাক, বৈঠকের সফলতা নিয়ে শঙ্কার ধোঁয়াশা সৃষ্টি করেছে সেটিই। ফাইনাল প্রস্তাবে বার্সেলোনা নেইমারের যে দাম ঠিক করেছে, পিএসজির চাহিদা যে তার চেয়েও অনেক বেশি।

কিন্তু বার্সেলোনার ফাইনাল প্রস্তাবে কী আছে, তা এখনো নিশ্চিত করে জানা যায়নি। বার্সার পক্ষ থেকে মুখ ফুটে কিছু বলা না হলেও এরই মধ্যে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে। গণমাধ্যমসূত্রে জানা যাচ্ছে, প্রত্যাখ্যাত হওয়া প্রথম প্রস্তাবের মতো ফাইনাল প্রস্তাবেও বার্সেলোনা নেইমারকে এক মৌসুমের জন্য ধারে কেনার শর্তই অবিকল রেখেছে। এমনকি এক মৌসুম পর স্থায়ী চুক্তির শর্তও ঠিক রেখেছে। শুধু স্থায়ী চুক্তির শর্তের টাকার অঙ্কটা বাড়িয়ে নাকি ১৭০ মিলিয়ন ইউরো করেছে।

বার্সার প্রথম প্রস্তাবটি ছিল, এক মৌসুমের ধার চুক্তির জন্য পিএসজিকে দেওয়া হবে ৪০ মিলিয়ন ইউরো। এরপর মৌসুম শেষে স্থায়ী চুক্তি করার সময় দেওয়া হবে আরও ১৫০ মিলিয়ন ইউরো। সব মিলে ২৭ বছর বয়সী নেইমারের জন্য বার্সার প্রথম প্রস্তাবটি ছিল ১৯০ মিলিয়ন ইউরোর। পিএসজি যে প্রস্তাবটি নাকচ করে দিয়েছে।

গুঞ্জন মতে প্রথম প্রস্তাবের শর্তগুলোই ফাইনাল প্রস্তাবে অবিকল রেখেছ বার্সা। শুধু স্থায়ী চুক্তির শর্তের টাকার অঙ্কটা ১৫০ মিলিয়ন ইউরো থেকে বাড়িয়ে ১৭০ মিলিয়ন ইউরো করেছে। মানে সব মিলে পিএসজির ব্রাজিলিয়ান তারকার জন্য বার্সার ফাইনাল প্রস্তাবটা ২১০ মিলিয়ন ইউরোর!

কিন্তু পিএসজির চাহিদা এর চেয়েও অনেক অনেক বেশি। দুই দলের চূড়ান্ত বৈঠককে সামনে রেখে এরই মধ্যে গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে, নেইমারের জন্য ১০০ মিলিয়ন ইউরো+উসমানে ডেম্বেলে ও নেলসন সেমেদোকে চাইছে পিএসজি! নগদ ১০০ মিলিয়ন ইউরোর সঙ্গে পিএসজির চাহিদার দুই খেলোয়াড়ের আর্থিক মূল্যটা যোগ করলে অঙ্কটা দাঁড়াবে ২৫০ থেকে ৩০০ মিলিয়ন ইউরো!

২০১৭ সালে জার্মান ক্লাব বরুসিয়া ডর্টমুন্ড থেকে ডেম্বেলেকে ১৪৭ মিলিয়ন ইউরোর চুক্তিতে কিনে এনেছে বার্সেলোনা। ২২ বছর বয়সী এই ফরাসি ফরোয়ার্ডের জন্য বার্সা নগদই দিয়েছে ১০৫ মিলিয়ন ইউরো। বাকি ৪২ মিলিয়ন ইউরো দেওয়ার কথা বিভিন্ন শর্ত সাপেক্ষে। গত দুই বছরে তার কয়েক কিস্তি পরিশোধও করেছে।

নেইমারের চুক্তির শর্তে বার্সার এই দামে ঘোড়াকেও চেয়ে বসেছে পিএসজি। চুক্তির পরই বার্সেলোনা যার ওপর ঝুলিয়ে দিয়েছে ৪০০ মিলিয়ন ইউরোর রিলিজ ক্লজ। সঙ্গে পর্তুগিজ ডিফেন্ডার নেলসন সেমেদোর ওপরও পাক্কা ১০০ মিলিয়ন ইউরোর প্রাইসট্যাগ ঝুলিয়ে রেখেছে বার্সেলোনা। কিন্তু নেইমারের বিনিময়ে এই দুজনকেই চাই পিএসজির। সঙ্গে নগদ ১০০ মিলিয়ন ইউরো।

ডেম্বেলের প্রতি ফরাসি ক্লাব পিএসজির আকর্ষণটা স্পষ্টই। একে তো ডেম্বেলে একজন ফরাসি। তার ওপর পিএসজির জার্মান কোচ টমাস টাচেল ডেম্বেলের সাবেক গুরু। বরুসিয়া ডর্টমুন্ডে দুজনে কাজ করেছেন এক সঙ্গেই। পূর্বের সেই সম্পর্কের সূত্রেই হয়তো ডেম্বেলেকে আবার নিজের কাছে পেতে চাইছেন পিএসজি। সঙ্গে রক্ষণশক্তি বৃদ্ধির জন্য সেমেদোকেও তাদের চাই। যে সেমেদো এরই মধ্যে বার্সেলোনার শুরুর একাদশে নিজের জায়গাটা প্রায় পাকা করে ফেলেছেন।

গুঞ্জন মতো, চূড়ান্ত প্রস্তাবে বার্সা যে দাম দেওয়ার জন্য ঠিক করেছে, তার সঙ্গে পিএসজির চাহিদার বিস্তর ফারাক। বৈঠকের নামে দুপুরের দর কষাকষির যুদ্ধে দুই দলের কর্তারা এই ফারাক ঘুচিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছতে পারেন কিনা, চরম কৌতুহলের বিষয় এখন সেটিই।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :188 বার!

error: Content is protected !!
JS security