রাজনগরে স্কুল ছাত্র অপহরণ, মুক্তিপণ দাবি ১০ লক্ষ টাকা

গ্লোবাল ডেস্ক ::- মৌলভীবাজারের রাজনগরে মাসুম আহমদ (১৪) নামে পঞ্চম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্র অপহৃত হয়েছে। মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকালে অপহরণ করা হলেও এখনো তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।  অপহৃত মাসুম আহমদ উপজেলার সদর ইউনিয়নের ভুজবল গ্রামের প্রবাসী সুলেমান মিয়া ওরফে তাজিল মিয়ার ছেলে। 

অপহরণকারীরা ওই ছাত্রের মায়ের মোবাইলে ফোন করে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ চেয়েছে। ছেলেকে নিতে হলে টাকা দিয়েই নিতে হবে বলে জানিয়েছে অপহরণকারী চক্র। 

পুলিশ ও অপহৃতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, রাজনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের হাজী গজনফর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্র ও একই ইউনিয়নের ভুজবল গ্রামের প্রবাসী তাজিল মিয়ার ছেলে মাসুম আহমদ (১৪) গত মঙ্গলবার বিকাল ৫টার সময় চুল কাটার কথা বলে  বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। রাত ১০টা পর্যন্ত বাড়ীতে না আসায় তার খোঁজ পড়ে। এসময় গ্রাম ও এর আশপাশ এবং বিভিন্ন আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে তার খোঁজ করা হয়। তাকে কোথাও না পেয়ে পরিবারের সবাই চিন্তিত হয়ে পড়েন । এরপর রাত ১টার দিকে মাসুম আহমদের মায়ের মোবাইল ফোনে একটি কল আসে। অপর প্রান্ত থেকে বলা হয় ১০ লক্ষ টাকা দিলে তার ছেলেকে ফিরিয়ে দেয়া হবে। থানা পুলিশ করে কোন লাভ নেই। টাকা কোথায় নিয়ে যাবেন তা পরে জানানো হবে। একথা বলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয় অপহরণকারী চক্র। এর কিছুক্ষন পরেই ফোন করে টাকা রেডি হয়েছে কি না জানতে চায় এবং সিলেটের মালনি ছড়া বাগানে টাকা নিয়ে যেতে বলে। 

পরদিন বুধবার এব্যাপারে রাজনগর থানায় সাধারণ ডায়রি করেন মাসুম আহমদের চাচা। মাসুম আহমদ অপহৃতের ঘটনায় তার চাচা মুক্তার মিয়া (৬৩) রাজনগর থানায় সাধারন ডায়রি করেছেন। এব্যাপারে রাজনগর থানা পুলিশ বিভিন্ন এলাকায় তল্লাশি চালায় কিন্তু তার কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। 
বৃহস্পতিবার অপহরণকারী চক্র ফোন করে বলে, থানা পুলিশ না করার জন্য বলেছিলাম। থানা পুলিশ কি তাকে বের করে দিতে পারবে? এসময় মাসুমের চিৎকারও শোনায় অপহরণকারীরা।
এব্যাপারে রাজনগর সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেওয়ান খয়রুল মজিদ সালেক বলেন, অপহরণের খবর শুনে আমি তার বাড়িতে গিয়েছি। এবিষয়ে জিডিও করা হয়েছে। আইনশৃ্খংলা বাহিনীর সংশ্লিস্টদের সঙ্গে যোগাযোগ রয়েছে। এখনো কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। 

বিষয়টি জানতে রাজনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসিমের মোবাইল ফোনে কল দিলে তিনি একটি মিটিংয়ে আছেন বলে জানান। পরে জিডির তদন্ত অফিসার বিনয় ভূষণ দেব বলেন, আমরা যথাযথ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। বিভিন্ন সুত্রে অভিযান চালানো হচ্ছে। আশা করছি তাকে সুস্থভাবে উদ্ধার করা সম্ভব হবে।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :112 বার!

error: Content is protected !!
JS security