রাশিয়ার গোয়েন্দাসংস্থার মুখোশ খুলতে সাংবাদিক মৃত্যুর নাটক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:- রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থার মুখোশ উন্মোচনের জন্য সাংবাদিক আরকেডি বাবচিনকো (৪১) হত্যার নাটক সাজিয়েছিলো ইউক্রেন। বুধবার (৩০ মে) ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের একটি টেলিভিশনে চ্যানেলে ওই সাংবাদিক সংবাদ সম্মেলন করেছেন। তিনি এখন সুস্থ ও স্বাভাবিক আছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

মঙ্গলবার (২৯ মে) সন্ধ্যায় বাবচিনকোকে মাথায় গুলি করে হত্যা করা হয় বলে স্থানীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিকগণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

ইউক্রেনের নিরাপত্তা বাহিনীর প্রধান ভাসিল রাইটস্ক সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘আমাদের কাছে তথ্য আছে যে সাংবাদিক আরকেডি বাবচিনকোকে হত্যার এই নির্দেশ দেয় রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থা। তাদের মুখোশ উন্মোচন করতে এই ‘মৃত্যু’ নাটক সাজানো হয়েছিলো বলে জানান তিনি।

আরকেডি বাবচিনকোর মৃত্যু নিয়ে প্রকাশিত সংবাদে বলা হয় যে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় তার স্ত্রী উদ্ধার করে এবং তিনি অ্যাম্বুলেন্সের মধ্যে মারা যান। কিন্তু তার স্ত্রীও এই খবর জানতেন না। এজন্য সংবাদ সম্মেলনে স্ত্রীর কাছে বিশেষ ক্ষমা চান আরকেডি।

নিজ দেশের কঠোর সমালোচনার জন্য ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিনি দেশ ছাড়তে বাধ্য হন রাশিয়ার এই অভিজ্ঞ যুদ্ধবিষয়ক সাংবাদিক।

তার মৃত্যুর খবর প্রচার হবার পর ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী ভোলোদেমির গ্রয়েসম্যান এই হত্যাকাণ্ডের জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেন। এই হত্যাকাণ্ডের পর তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আমি এ বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী যে রাশিয়ার একনায়কতান্ত্রিক শাসকযন্ত্র এই সাংবাদিকের সততা ও ন্যায়নীতিকে ক্ষমা করতে পারেনি।

ইউক্রেনের স্থানীয় গণমাধ্যম এবং কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে গার্ডিয়ান, বিবিসি আল জাজিরাসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম এই সংবাদ প্রচার করে। রাশিয়া এই ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় তদন্ত করে মন্তব্য করার বিষয় উল্লেখ করেছিলো। তবে এই ধরনের ‘অপরাধ’ করাটা কিয়েভের শাসকদের জন্য নিয়মিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে বলেও উল্লেখ করে তারা।

২০১৪ সালে রাশিয়ার সঙ্গে ক্রিমিয়ার এক হয়ে যাওয়া এবং রাশিয়ার সৈন্যরা ইউক্রেনের পূর্বের কিছু অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নিলে দুদেশের সম্পর্কের অবনতি হয়। এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনার খবর প্রচারিত হওয়ার পর রাশিয়া ও ইউক্রেনের কর্মকর্তারা পরষ্পরের মধ্যে কাদা ছোড়াছুড়িতে লিপ্ত হন।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :268 বার!

JS security