শাল্লায় চাচার হামলায় ভাতিজা গুরুতর আহত, মামলা এফআইআর করতে পুলিশের টালবাহানা!

বিষেশ প্রতিনিধি:- সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার আটগাঁও ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামে চাচা ও চাচাতো ভাইদের হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন নওফল আহমদ (২৬) নামে এক ব্যক্তি। এঘটনায় নওফল’র মা মোছাঃ বদরুন্নেছা বাদী হয়ে মোঃ মস্তফা মিয়া সহ ০৩ জনের নাম উল্লেখ করে শাল্লা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মস্তফা মিয়া নওফলদের জায়গায় (চলাচলের রাস্তায়) জোরামূলে নারকেল গাছের চারা রোপন করলে এনিয়ে নওফল নিষেধ প্রদান করাতে উভয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এরই জের ধরে মস্তফা মিয়া ও তার ছেলেগণ আক্রোশ্বান্নিত হয়ে গত ১৯-০৫-২০১৮ ইং তারিখে নওফলের উপর হামলা চালায়। মস্তফা মিয়া সাতকাটিয়া কোঁচা (মাছ ধরার হাতিয়ার) দ্বারা ঘাঁ দিয়ে নওফল এর বুকের বাম পাশে বিদ্ধ করিয়া গুরুতর জখম করে। এছাড়াও বেধরক মারধর করে নওফল এর শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে। নওফলকে আহতবস্থায় দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বাদী মোছাঃ বদরুন্নেছা বলেন, আমার এক ছেলে ও ০৩ মেয়েকে শিশু অবস্থায় রেখে আমার স্বামী দীর্ঘ ১৮ বৎসর পূর্বে মারা যান। তার মৃত্যুর পর হতে আমার দেবর মস্তফা আমার স্বামীর সম্পত্তির প্রাপ্য অংশ আত্নসাতের উদ্দেশ্যে আমাকে সীমাহীন অত্যাচার ও নির্যাতন করে আসছে। আমাদের জায়গায় মস্তফা নারকেল গাছের চারা রোপন করে। আমার ছেলে তাকে নিষেধ দিলে তারা আমার একমাত্র ছেলেকে মারপিট করে গুরুতর জখম করে। আমি শাল্লা থানায় অভিযোগ দায়ের করলেও থানা পুলিশ অদৃশ্য কারণে আমার মামলা এফআইআর করছে না। এ বিষয়ে জানতে চাইলে, শাল্লা থানার অফিসার ইনচার্জ বজলার রহমান প্রথমে বলেন মোবাইলে তথ্য দেওয়া যাবে অবশ্য পরে বলেন মামলার তদন্তকাজ সম্পন্ন হয়েছে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি সামাজিকভাবে মিমাংসা করার অনুরোধ জানিয়ে সময় নিয়েছেন, মিমাংসা না হলে অবশ্যই অভিযোগ এফআইআর করা হবে।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :509 বার!

JS security