সিলেটে আটক হওয়া ৯ জঙ্গী দলে এনজিও কর্মকর্তা! নাশকতার পরিকল্পনা

গ্লোবাল ডেস্কঃ- সিলেট নগরীর আরামবাগের একটি বাসা থেকে সিলেট বিভাগীয় প্রধানসহ আটক হওয়া নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন ‘আল্লাহর দল’র ৯ সদস্য নাশকতার পরিকল্পনা করেছিল বলে জানিয়েছেন সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার পরিতোষ ঘোষ।

বৃহস্পতিবার (৩০ জানুয়ারি) দুপুরে সিলেট মহানগর পুলিশ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আটককৃত ‘আল্লাহর দলের’ সদস্যরা এখানে অবস্থান করে নাশকতার পরিকল্পনা করছিলো। তবে, কি ধরণের নাশকতার পরিকল্পনা করছিলো তা এখনো জানা যায়নি। এদের সাথে আর কারো যোগসূত্র আছে কি না তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আটক জঙ্গিদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আটককৃতদের মধ্যে চাকরিজীবী ও এনজিও কর্মকর্তাও আছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার পরিতোষ ঘোষ আরও বলেন, ঢাকা থেকে আসা অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের একটি চৌকস দল সিলেটে এসে এ অভিযান পরিচালনা করে। সিলেট মহানগর পুলিশের সহযোগিতায় এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের পুলিশ সুপার মোহিদুজ্জামান।

এর আগে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার (২৯ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ১০টার দিকে শাহপরান থানাধীন আরামবাগ এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে নগদ ১৬ হাজার টাকা ও কিছু লিফলেট উদ্ধার করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- আল্লাহর দলের সিলেট বিভাগীয় প্রধান ও বগুড়ার আব্দুল মান্নান আখন্দের ছেলে মানিক আখন্দ, নোয়াখালির আবুল কালামের ছেলে জহির উদ্দিন বাবর, সিলেটের জকিগঞ্জের মখদ্দস আলীর ছেলে রাসেল আহম্মদ, একই এলাকার মুক্তাদির মিয়ার ছেলে কামাল আহমদ, কুমিল্লারা আব্দুল আলীর ছেলে আবুল কালাম আজাদ, সুনামগঞ্জের আব্দুল আজিজের ছেলে তমি উদ্দিন সুমন, রাজশাহীর কায়েম উদ্দিনের ছেলে আশরাফুল ইসলাম, সিলেট সদর উপজেলার টুকেরবাজারের আব্দুস সালামের ছেলে জুয়েল আহম্মেদ, রাজশাহীর কায়েম উদ্দিনের ছেলে আশরাফুল ইসলাম ও সিলেটের গোলাপগঞ্জের আলাউদ্দিনের ছেলে স্বপন আহম্মেদ।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :219 বার!

JS security