১৫ আগস্টের মাস্টারমাইন্ড জিয়া, ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ড তারেক: কাদের

গ্লোবাল ডেস্ক :–  আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগস্ট এলে বিএনপি নেতাদের মাথা খারাপ হয়ে যায়, তারা বিভিন্ন বিষয়ে উল্টাপাল্টা বক্তব্য দেন। কারণ আগস্ট হলো তাদের ষড়যন্ত্রের মাস। কারণ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের মাস্টারমাইন্ড ছিলেন জিয়াউর রহমান, আর ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ড তারেক রহমান, জিয়ার সন্তান। এদের সংশ্লিষ্টতা এখন প্রমাণিত। প্রচলিত আদালতে প্রমাণ হয়েছে, জনতার আদালতে প্রমাণ হয়েছে।

তিনি বলেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলকে একটা প্রশ্ন করেছি, জবাব আজও পাইনি। আমার প্রশ্নটা হচ্ছে, বঙ্গবন্ধুর খুনিদের পুরস্কৃত করেছেন, পুনর্বাসিত করেছেন, বিদেশে দূতাবাসে চাকরি দিয়েছেন। এই খুনিদের বিচারের পথ কেন রুদ্ধ করতে চাইলেন? কেন বাংলাদেশের পবিত্র সংবিধানকে কলঙ্কিত করলেন? পঞ্চম সংশোধনীতে হন্তারকদের বিচার বন্ধ রাখার ব্যবস্থা করলেন। এখানেই তো এই ট্র্যাজেডিতে আপনাদের সংশ্লিষ্টতা প্রত্যক্ষ প্রমাণ। এ প্রশ্নের জবাবও আপনারা দিতে পারেন না।

সোমবার (২৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধুর ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ এ আলোচনা সভার আয়োজন করে। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক

ওবায়দুল কাদের বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার সরকার ও বিএনপি একই সুরে কথা বলছে এবং উসকানি দিচ্ছে। রোহিঙ্গা ইস্যুতে সারা দুনিয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভূমিকার প্রশংসা করছে। অথচ বিএনপি এখানে সরকারের গাফিলতি খুঁজছে।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে আমরা কূটনীতিতে পিছিয়ে নেই।মিয়ানমারের উপর আগের চেয়ে চাপ অনেক বেড়েছে, যাতে তারা রোহিঙ্গাদের ফেরত নিয়ে যায়। প্রথমে তারা নিতেই চায়নি। তাদের মনে যাই থাক এখন প্রকাশ্যে ফিরিয়ে নিতে চাইছে। এটাও আমাদের সফলতা।

বিএনপির উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে রাস্তায় উত্তাপ ছড়াতে পারেননি, আন্দোলন করতে পারেননি। এখন আগস্ট মাসে এসে বেগতিক অবস্থা, কখনো বাকশাল, কখনো সরকার, কখনো রেহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে ব্যর্থ- এসব নানান বিষয় কথা বলে নিজেদের দায় এড়াতে চায় বিএনপি।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, সংগঠনিক সম্পাদক আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদের সাবেক মহাসচিব আব্দুল মান্নান, বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান সেলিম প্রমুখ।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :72 বার!

error: Content is protected !!
JS security