দুর্যোগ

বন্যা মোকাবিলায় প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার, সুনামগঞ্জসহ ৮ জেলায় ত্রাণ বরাদ্দ

বন্যা মোকাবিলায় প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার, সুনামগঞ্জসহ ৮ জেলায় ত্রাণ বরাদ্দ


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
গ্লোবাল ডেস্ক :- উজান থেকে নেমে আসা পানির কারণে সিলেটসহ দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জেলাগুলোতে বন্যা দেখা দিয়েছে। বন্যায় ডুবতে বসেছে জনপদ এবং ফসল। পানিবন্দি হচ্ছে হাজারো মানুষ। এই বন্যা মোকাবিলায় প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার। বন্যা কবলিত এলাকায় পর্যাপ্ত ত্রাণ ও টাকা বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর জানিয়েছে, আজ রোববারের (২৮ জুন) মধ্যে জেলাগুলোতে প্রয়োজনীয় ত্রাণ ও টাকা বরাদ্দ দেওয়া হবে। নগদ ৪৭ লাখ টাকা এবং ৪৬০ মেট্রিকটন চাল বরাদ্দ প্রক্রিয়াধীন। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসাবে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) মো. মোহসীন বলেন, বন্যা কবলিত এলাকায় সব সময় খেয়াল রাখা হচ্ছে, আমরা প্রস্তুত আছি। তিনি জানান, জেলা প্রশাসকদের অধীনে সব সময় ত্রাণ বরাদ্দ রাখা থাকে। আজ অতিরিক্ত বরাদ্দ দিয়েছি। সুনামগ
ছাতকের সাথে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

ছাতকের সাথে সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
ছাতক প্রতিনিধি :: টানা তিনদিনের ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে নদনদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে ভয়াবহ বন্যায় ছাতক-সিলেট সড়কের একটি অংশ তলিয়ে যাওয়ায় সুনামগঞ্জের ছাতক শহরের সাথে সারা দেশের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। শনিবার রাত ১০টায় এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত পৌর শহরের প্রায় সবকটি সড়কে পানি উঠে গেছে। শহরের অলি-গলি, বাসা-বাড়ি ও আঙ্গিনায় বন্যার পানি প্রবেশ করায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে শহরবাসী। এছাড়া সুরমা, চেলা, পিয়াইন, বটেরখাল, কাকুরা নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় সকাল থেকেই একের পর এক গ্রামীণ সড়ক তলিয়ে গিয়ে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়। উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের প্রায় ৮০% মানুষ পানিবন্দী ছাড়াও সবকটি ইউনিয়নের হাটবাজার, অনেকের ঘরবাড়ি ও বাড়ির আঙ্গিনায় বন্যার প্লাবিত হয়ে ঘর বন্দী হয়ে আছেন মানুষ। আকস্মিক বন্যায় ভেসে গেছে শতাধিক মৎস্য খামারের মাছ। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে শাকসবজি
সুনামগঞ্জ শহরের নিম্নাঞ্চল বন্যায় প্লাবিত

সুনামগঞ্জ শহরের নিম্নাঞ্চল বন্যায় প্লাবিত


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জে নদী তীরবর্তী এলাকা ও নিম্নাঞ্চল বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। বন্যার পানিতে সুনামগঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকা ডুবে গেছে। ভারী বৃষ্টিপাত এবং উজানে ভারতের মেঘালয় পাহাড় ও চেরাপুঞ্জিতে টানা বৃষ্টিপাত হওয়ায় পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জে বন্যা দেখা দিয়েছে। শনিবার সকাল থেকে সুরমা নদী উপচে সুনামগঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকা ডুবে গেছে যায়। শহরে তেঘরিয়া, আরপিননগর, বড়পাড়া, কাজির পয়েন্ট, ষোলঘর, ওয়েজখালি, মল্লিকপুসহ বিভিন্ন এলাকা তলিয়ে যায়। এদিকে, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে বন্যা দেখা দেয়ায় চরম বিপাকে পড়েছেন সুনামগঞ্জের বন্যাকবলিত মানুষ। কারো কারো বাড়িতে উঠে গেছে পানি। শহরের পশ্চিম তেঘরিয়া এলাকার আহমদ হোসেন বলেন, আমার ঘরে প্রায় কোমর পানি। সকালে জিনিসপত্র সরাতে সরাতে পানি ওঠে গেছে। কি করব এখন কিছুই করার নাই। যে কারো বাসায় গিয়ে ওঠতে হবে। আশ্রয়ের জন্য এছাড়া আর উপায় নেই। ঘরে খাবার যা ছিল
ইতালিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৬৯ জনের মৃত্যু

ইতালিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৬৯ জনের মৃত্যু


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে ইতালিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৬৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৯ হাজার ১৩৪ জনে দাঁড়ালো। ইতালির সিভিল প্রোটেকশন এজেন্সি শুক্রবার এ তথ্য জানিয়েছে। এর আগে দেশটিতে গত ২১ মার্চ ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৭৯৩ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এছাড়া গত বৃহস্পতিবার করোনায় দেশটিতে ৭১২ জন, বুধবার ৬৮৩ জন, মঙ্গলবার ৭৪৩ জন এবং সোমবার ৬০২ জনের মৃত্যু হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৮৬ হাজার ৪৯৮ জনে দাঁড়িয়েছে। যা চীনের আক্রান্তের সংখ্যাকেও ছাড়াল। এদিকে প্রাণঘাতী এই করোনা ভাইরাসে বিশ্বব্যাপী আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখ ৭৫ হাজার ছাড়িয়েছে। সেইসঙ্গে মৃতের সংখ্যা ২৬ হাজারের বেশি। গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে সর্বপ্রথম করোনা ভাইরাসের আবির্ভাব ঘটে। এরপর একে একে বিশ্বের ১৮০ টির বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। প্রতিক্ষণে এই ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ছে। সূত্র :
বিজ্ঞানীদের ঘুম হারাম, ৩৮০ বার জিন বদলেছে করোনা

বিজ্ঞানীদের ঘুম হারাম, ৩৮০ বার জিন বদলেছে করোনা


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
বারবার নিজের জিন বদলে উত্তোরত্তর ভয়াবহ হয়ে উঠছে করোনাভাইরাস। এরই মধ্যে সে টিকে থাকার স্বার্থে ৩৮০ বার নিজের জিন বদলে ফেলেছে। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, কোভিড-১৯ এর এই জিন মিউটেশনই ভয়ের আসল কারণ। যার জেরে বিশ্বের সব বিজ্ঞানীদের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে আমজনতার মধ্যেও। মাঝেই মাঝেই শোনা যাচ্ছে এবারে এই ভাইরাসকে জব্দ করা যাবে ভ্যাকসিন দিয়ে। কিন্তু প্রতিষেধক কতটা কাজের কাজ করতে পারবে সেই নিয়ে চিকিৎসাবিজ্ঞানীরাও চিন্তায় পড়েছেন। হিউম্যান প্যাথোজেনিক ভাইরাসের সংক্রমণজনিত অসুখের এক গবেষকের মতে, এতো কম সময়ের মধ্যে ঘন ঘন জিন মিউটেশন করে নিজের চরিত্র বদলে ফেলছে এই ভাইরাস। তাই একে রুখতে সুনির্দিষ্ট কোনও ওষুধ ব্যবহার করা মুশকিল। প্রায় দুদশক ধরে করোনা গোত্রেরই ভাইরাস নিয়ে চিকিৎসকরা চিন্তিত। চীনের উহান থেকে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া এই কোভিড-১৯ ভাইরাসের ১৮ বছর আগে সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম বা স
‘যে শীত পইছে গরিবের মরণ ছাড়া উপায় নাই বাহে’

‘যে শীত পইছে গরিবের মরণ ছাড়া উপায় নাই বাহে’


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
মোঃ সিরাজুল ইসলাম নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি ঃ- হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত নীলফামারীর ডিমলায় বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। দিন দিন কমছে তাপমাত্রা, বাড়ছে শীতের তীব্রতা। তীব্র শীতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন নিম্ন আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ। ঠান্ডায় তারা কাজে বের হতে পারছেন না। ডিমলা আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়া পর্যবেক্ষক মাহামুদুল ইসলাম জানান, নীলফামারীতে বৃহস্পতিবার (২৬ ডিসেম্বর) সকাল ৬টায় ৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। সকাল ৯টা পর্যন্ত হেডলাইট জ্বালিয়ে চলাচল করেছে যানবাহনগুলো। এদিকে সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, সকাল ৬টায় ৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। গতকাল থেকে তাপমাত্রা ওঠানামা করছে। ফলে রাতে ও সকালে তীব্র শীত অনুভূত হয়। বৃহস্পতিবার ভোর থেকে ঘন কুয়াশায় ঢেকে গেছে পুরো জেলা। অনবরত ঠান্ডা বাতাস প্রবাহিত হচ্ছে। সকাল গড়িয়ে দুপুর হলেও সূর্যের দেখা
সারাদেশে শীতে ৫০ দিনে ৪৯ জনের মৃত্যু

সারাদেশে শীতে ৫০ দিনে ৪৯ জনের মৃত্যু


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
শীতে কাঁপছে দেশ। এসময়ে সারাদেশে শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ, ডায়রিয়া এবং শীতের অন্যান্য অসুখ অর্থাৎ জণ্ডিস, চোখের প্রদাহ, আমাশয়, চর্মরোগ এবং জ্বরে আক্রান্তের সংখ্যা দিনকে দিন বাড়ছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন্স সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের হিসাব অনুযায়ী,গত ১ নভেম্বর থেকে ২১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৫০ দিনে বিভিন্ন রোগে মারা গেছেন ৪৯ জন। কন্ট্রোল রুমের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গত ৫০ দিনে ঢাকা বিভাগে শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণে আক্রান্ত হয়েছেন ৯ হাজার ৫৬২ জন, ডায়রিয়া ২২ হাজার ৬৪৩ জন, অন্যান্য অসুস্থতায় আক্রান্ত হন ১২ হাজার ৫৬৫ জন। এরমধ্যে শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণে একজন এবং অন্যান্য অসুস্থতায় চার জন মারা গেছেন। চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ জেলায় গত এক নভেম্বর থেকে বিভিন্ন রোগে আক্রান্তের সংখ্যা শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণে ছয় হাজার ৪৭৮ জন, ডায়রিয়ায় ১৭ হাজার ২১১ জন, অন্যান্য অসুস্থতায় ৪৮ হাজার ২৭১ জন। শ্বাসতন
ডুবে গেছে ইতালির ভেনিস নগরী, জরুরি অবস্থা জারি

ডুবে গেছে ইতালির ভেনিস নগরী, জরুরি অবস্থা জারি


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
আন্তর্জাতিক ডেস্ক:-  ইতালির প্রধানমন্ত্রী গুইসেপ কন্তে ভেনিস নগরীতে জরুরি অবস্থা জারি করেছেন। প্রায় পুরো নগরী পানিতে তলিয়ে যাওয়ার পর তিনি এ ঘোষণা দিলেন। বন্যায় ওই নগরীতে এখন পর্যন্ত দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। জরুরি অবস্থা ঘোষণার আগে দেশটির সংসদে তা অনুমোদন করা হয়। ভেনিস হচ্ছে বিশ্বের পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণস্থল। ভেনিস নগরীতে গত ৫০ বছরে এতো বেশি পানি উঠেনি। নগরীর ৮০ শতাংশই পানিতে তলিয়ে গেছে। ১৯৬৬ সালের পর এবার পানির উচ্চতাও সর্বোচ্চে পৌঁছেছে। জোয়ার পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের হিসাবমতে, ভেনিসে এবার পানি সর্বোচ্চ ১ দশমিক ৮৭ মিটার (৬ ফুট) উচ্চতায় উঠেছে। এর আগে ১৯২৩ সাল থেকে রেকর্ড শুরু হওয়ার পর ১৯৬৬ সালে ভেনিসে জোয়ারের পানির উচ্চতা হয়েছিল ১ দশমিক ৯৪ মিটার। জোয়ারে ভেনিসের ঐতিহাসিক ব্যাসিলিকা, শহরের প্রাণকেন্দ্রসহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক এলাকা এবং সরু গলিপথ পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেনিসের মেয়র লুইজি ব্রুগনারো
বুলবুলের’ আঘাতে নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে

বুলবুলের’ আঘাতে নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুলের’ আঘাতে খুলনায় ২, সাতক্ষীরা ও পটুয়াখালিতে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তাৎক্ষনিকভাবে নিহতের নাম পরিচয় জানা যায়নি। তবে ধীরে ধীরে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ দুর্বল হয়ে স্থল নিম্নচাপে পরিনত হয়েছে। এ কারণে মোংলা, পায়রা ও চট্টগ্রামে মহাবিপদ সংকেত প্রত্যাহার করা হয়েছে। উপকূলীয় এলাকায় মহাবিপদ সংকেত নামিয়ে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত এবং নৌযান চলাচলে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। রোববার সকালে দিকে আবহাওয়া দপ্তরের পরিচালক শামসুদ্দীন আহমেদ এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। এর আগে আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এটির অবস্থান ক্রমান্বয়ে উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে আজ রোববার সন্ধ্যা নাগাদ বুলবুলের প্রভাবমুক্ত হবে বাংলাদেশ।
সাতক্ষীরায় সহস্রাধিক ঘরবা‌ড়ি বিধ্বস্ত

সাতক্ষীরায় সহস্রাধিক ঘরবা‌ড়ি বিধ্বস্ত


Warning: printf(): Too few arguments in /home/globalsylhet/public_html/wp-content/themes/viral/inc/template-tags.php on line 113
ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ এর তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে সাতক্ষীরার উপকূলীয় শ্যামনগর উপজেলা। বিধ্বস্ত হ‌য়ে‌ছে সহস্রাধিক ঘরবা‌ড়ি। রোববার ভোররাত থেকে সাতক্ষীরার উপকূলীয় এলাকায় শুরু হয় ঝড়ো হাওয়া। ঝড়ে উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কাচা ঘরবাড়ি মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। রাস্তাঘাটে গাছপালা উপড়ে পড়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। মাছের ঘের ভেসে গেছে। এখনও উপকূলে ঝড়ো বাতাস বইছে। উপকূলীয় শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালীনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ভবতোষ মণ্ডল জানান, ঝড়ে সব কিছু লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। রাস্তাঘাটে গাছপালা পড়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। মানুষের মাটির ঘরবাড়ি একটিও নেই। মানুষের মাছের ঘের ভেসে গেছে। প্রচণ্ড বৃষ্টির সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া ভোররাত থেকে শুরু হয়ে এখনও চলছে। শ্যামনগ‌র উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান জানান, উপকূলীয় দ্বীপ ইউনিয়ন, গাবুরা ও
JS security