আন্ত:জেলা প্রতারক চক্রের ৩ নারীকে গ্রেফতার

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি:- সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে আন্ত:জেলা প্রতারক চক্রের ৩ নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার গভীর রাতে এসআই অনুজ কুমার দাশের নেতৃত্বে উপজেলা আশারকান্দি ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের কামরুল ইসলামের বসত বাড়ী থেকে আসামীদের গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার কোনারাই গ্রামের তৌহিদ মিয়া ওরফে আব্দুল মতিন চৌধুরীর মেয়ে শিউলি বেগম ওরফে দিলসানা বেগম ইয়াসমিন (৩৪), সুনামগেঞ্জর ছাতক উপজেলার দোহালিয়া গ্রামের কাচা মিয়ার মেয়ে সুমনা আক্তার (১৯), হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার ঘোলডুবা গ্রামের মৃত আজাদ মিয়ার মেয়ে সীমা আক্তার(১৯)। গ্রেফতারকৃত আমীদের রবিবার সুনামগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ১০ ফেব্রুয়ারী আন্ত:জেলা প্রতারক চক্রের শিউলি বেগম লন্ডন নেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ও প্রেমের জালে ফাঁসিয়ে জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী ইউনিয়নের লোহারগাঁও গ্রামের কাচা মিয়া ছেলে আশরাফুল রহমানের কাছ থেকে প্রতারক চক্রের অন্যান্য সদস্যদের সহযোগিতায় ৫ লক্ষ টাকা কাবিন এবং ৭ ভরি স্বর্নলংকার নিয়ে বিবাহ করে। বিবাহের পর স্বামীর বাড়িতে থাকা অবস্থায় পরিবারের সদস্যদের সাথে খারাপ আচরন শুরু করে। যাতে করে তালাকের মাধ্যমে কাবিনের টাকা হাতিয়ে নিতে পারে। একপর্যায়ে শিউলি বেগম তার কথিত বাড়ী সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলা চলে যায়।

পরে গত শুক্রবার (৩ এপ্রিল) উপজেলা আশারকান্দি ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামে এসে অন্য আরেকটি ছেলেকে একই প্রলোভনে বিবাহের পায়তারা শুরু করে আন্ত:জেলা প্রতারক চক্র। খবর পেয়ে আশরাফুল রহমান সেখানে উপস্থিত হলে, তাকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দেয়া হয়। পরে আশরাফুল রহমান বাদী হয়ে জগন্নাথপুর থানায় ওই আন্ত:জেলা প্রতারক চক্রের ৫ সদস্যদের নামে মামলা দায়ের করেন।

মামলার বাদী আশরাফুল রহমান জানান, আমাকে ফাঁসিয়ে বিয়ের কাবিলার মাধ্যমে নগদ ৫ লাখ টাকা সাত ভরি সোনা নিয়ে কৌশলে পালিয়ে যায় শিউলী বেগম।
আমি জানতে পারি আমার মতো আরেকটা ছেলেটে প্রলোভন দেখিয়ে বিয়ের নামে প্রচারিত করা হচ্ছে। বিষয়টি থানায় লিখিতভাবে জানাই।

জগন্নাথপুর খানের ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, প্রতারনা চক্রের ভুয়া লন্ডনীকন্যাসহ গ্রেফতারকৃত তিনজনক সুনামগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :164 বার!

JS security