ব্যতিক্রমী রায়ঃ ভাঙ্গন থেকে রক্ষা পেলেন ৫৪ পরিবার

 

সুনামগঞ্জের নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে ৬৫ মামলার রায় প্রদান করেছেন আদালত। দ্বন্দ্ব মিটিয়ে সংসার করার শর্তে ৫৪ স্বামীকে স্ত্রী সন্তানের কাছে  ও সংসার করতে সম্মত না হওয়ার ১১ স্বামীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করেছেন আদালত। সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ১২টায় একসঙ্গে ৬৫টি পৃথক মামলার দেয়া রায়ে সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. জাকির হোসেন এই আদেশ দেন। আদেশ ঘোষণার পর  আদালত প্রাঙ্গণে স্বামী-স্ত্রীকে ফুল দিয়ে বরণ করা হয়।

আদালত সূত্রে জানায় ,নারী নির্যাতন,যৌতুকসহ বিভিন্ন অভিযোগ উল্লেখ করে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে স্বামীদের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন স্ত্রীরা। দীর্ঘদিন মামলা চলার কারণে স্বামী, সন্তান ও স্ত্রীদের জীবন অনিশ্চিতের দিকে যাচ্ছিল। আর্থিক, সামাজিকসহ বিভিন্নভাবে ক্ষতি সম্মুখীন হচ্ছিলেন উভয় পরিবার। আপোষ মীমংসার মাধ্যমে সংসারের সম্মত হওয়ায় ৫৪ জন  স্বামীকে মুক্তি দিয়ে কারাগারের পরিবর্তে ফুল হাতে তাদের স্ত্রী সন্তানের কাছে ফেরৎ পাঠান আদালত। অপরদিকে সংসারে সম্মত না হওয়ার ১১ স্বামীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

এব্যাপারে সুনামগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট নান্টু রায় দৈনিক জৈন্তাবার্তা কে বলেন,নিঃসন্দেহে এমন রায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। সামাজিক ও পারিবারিক বন্ধনকে আরও দৃঢ় করবে। আদালত পৃথক ৬৫টি মামলার রায় দিয়েছেন। ১১টি মামলায় ১১ জন স্বামীকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড প্রদান করেছেন। সেই সাথে মামলার জট কমবে বলে মনে করেন তিনি। এবং বিচারপ্রার্থী জনগণ তাদের সুবিচার পাবেন।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ২৫ নভেম্বর একই আদালতের বিচারক মো. জাকির হোসেন একদিনে পৃথক ৪৭টি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন মামলায় ৪৭টি পরিবারকে আপোষের মাধ্যমে তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরত পাঠাতে সক্ষম হয়েছিলেন। এনিয়ে মোট ১০১টি পরিবার ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা পেল।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :80 বার!

JS security