সহায়তার তালিকায় ভুয়া নাম শনাক্ত করায় শিক্ষককে কুপিয়ে আহত

গ্লোবাল ডেস্কঃ- পাবনার আটঘরিয়ায় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি কেএম রইচ উদ্দিন রবির উপর অতর্কিত হামলা করেছে ইউপি চেয়ারম্যানের সন্ত্রাসী বাহিনী। সরকারের জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে হতদরিদ্রের জন্য দুই হাজার ৫০০ টাকার সাহায্যের তালিকা যাচাই করে ভুয়া নাম শনাক্ত করায় তার উপর এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার রাতে রামেশ্বরপুর পূর্বপাড়ায় এই ঘটনা ঘটে। বর্তমানে গুরুতর আহত অবস্থায় তিনি আটঘরিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

সরাবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও আহত রইচ উদ্দিন বলেন, মাজপাড়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে সরকারের জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে হতদরিদ্রের জন্য দুই হাজার ৫০০ টাকার সাহায্যের তালিকা যাচাই করার দায়িত্ব পরে আমার উপর। আমি যাচাই বাছাই শেষে দেখি বেশিরভাগ আইডি কার্ড ও মোবাইল নম্বর ভুয়া এবং রাঘবপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তার বিশ্বাসের ছেলে শামসুল ইসলাম বিশ্বাস পাঁচ বছর আগে মারা গেছেন, তার নামও তালিকায় আছে। সব বিষয় তুলে ধরে আমি সঠিক রিপোট পেশ করি। রিপোটটি তাদের বিরুদ্ধে গেলে তারা আমার উপর ক্ষুব্ধ হয়। গত কয়েকদিন ধরে আমাকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিয়ে আসছিল। পরে সুপরিকল্পিতভাবে তারা আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই হামলা চালায়।

এই শিক্ষক বলেন, মঙ্গলবার রাতে আমি রামেশ্বরপুর বাজার থেকে মোটর সাইকেলযোগে মাজপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিন্নাত আলীর সঙ্গে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলাম। এ সময় ১০/১৫ জনের একদল সন্ত্রাসী গতিরোধ করে লাঠিশোটা ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারিভাবে মারপিট ও কোপাতে থাকে। এ সময় আমাদের চিৎকারে স্থানীয়রা দ্রুত এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা আমাদের উদ্ধার করে আটঘরিয়া হাসপাতালে ভর্তি করে।

মাজপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিন্নাত আলী বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল গফুরের এলাকায় নিজস্ব বাহিনী খ্যাত সন্ত্রাসীরা ইউপি সদস্য জাবেদ আলী ও আজগর আলীর নেতৃত্বে টিটু, আশরাফ হোসেন, উজ্জল মিয়া, রঞ্জু, আব্দুর রশিদ, সামাদ আলী, দুলাল হোসেন, ইকবাল, ফরিদ আলী, জুয়েল হোসেন, তুহিন বিশ্বাস ছিল হামলাকারী।

শিক্ষক রইচ উদ্দিন রবি সঠিক তথ্য দেয়ার জন্যেই তারা ক্ষুব্ধ হয়। আমি তার সঙ্গে মোটরসাইকেলে থাকায় তারা আমার উপরও হামলা করেন। আমরা দুজনই হাসপাতালে ভর্তি আছি। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বিচারও দাবি করেন তিনি।

ইউপি সদস্য জাবেদ আলী বলেন, সন্ত্রাসী হামলা হয়ে রবি ও জিন্নাহ আহত হয়েছেন শুনেছি।

তবে হতদরিদ্রের জন্য টাকার তালিকা যাচাই নিয়ে তার সঙ্গে ওই প্রধান শিক্ষকের বাগবিতণ্ডা হয়েছিল এবং ওই তালিকায় তার নিজের ফোন নম্বর একাধিক ব্যক্তির তালিকায় ছিল এমন প্রশ্নের উত্তরে জাবেদ বলেন, আমার ফোন নম্বর কেউ দিতেই পারে। এতে দোষের কী আছে।

মাজপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর এই ঘটনার সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা নেই দাবি করে বলেন, আমারসহ বিভিন্ন লোকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে লেখালেখি করে বেড়ায়, কে তাদের মারপিট করেছেন আমি জানি না।

আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান তানভীর ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বেও অনেক অভিযোগ পেয়েছি। তার মধ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিক তালিকা তৈরি, ত্রাণ কার্যক্রম, ভিজিডি এবং স্বল্প মূল্যে চালের তালিকাসহ সরকারের বিভিন্ন কাজে অনিয়ম দুর্নীতি ও আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে। উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন মিলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আটঘারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসিফ মো. সিদ্দিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এ ধরনের খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই আমাদের পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় লিখিতভাবে অভিযোগটি এখনো দিতে পারেন নাই। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :116 বার!

JS security