সিলেটের প্রবীণ দুই নেতা হাসপাতালে

গ্লোবাল সিলেট ডেস্ক :-  সিলেটের প্রবীণ দুই নেতা হাসপাতালে ভর্তি। করোনাকালীন সময়ে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাদের দু’জনকে সিলেটের নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এখন তাদের চিকিৎসা চলছে।

তবে তারা করোনা আক্রান্ত কিনা- বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তাদের করোনা পরীক্ষা করা হবে। শরীরের নানা জটিলতা নিয়ে তারা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এডভোকেট আবু নসর। সিলেট আওয়ামী লীগের নিবেদিতপ্রাণ এক নেতা প্রয়াত স্পিকার হুমায়ূন রশীদ চৌধুরীর জমানায় সিলেট আওয়ামী লীগের কর্ণধার ছিলেন তিনি। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘদিন। ছিলেন সিলেট জেলা বারের পিপি। আওয়ামী লীগের রাজনীতির একজন অভিভাবক হিসেবে দীর্ঘদিন তিনি কাজ করে গেছেন। বর্তমানে তিনি আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য। প্রায় এক যুগ ধরে বার্ধক্য জনিত কারণে বাড়িতেই রয়েছেন তিনি। কারো সাহায্য ছাড়া হাঁটতে পারেন না তিনি। তার কাছ থেকে পরামর্শ নিতে এখনো বাসায় ছুটে যান নেতারা। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সিলেট এলেই তাকে এক নজর দেখতে বাসায় চলে যান। সিলেটের প্রবীণ এই আওয়ামী লীগ নেতা করোনাকালে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাতে তাকে সিলেট নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তিনি দীর্ঘদিন থেকে শারীরিক বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগছিলেন। প্রায়ই তাকে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিতে হয়। গত কয়েকদিন আগে তিনি বাসায় পড়ে গিয়ে মারাত্মকভাবে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন। এরপর থেকে তিনি আবারো অসুস্থ হয়ে গেছেন। তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত নন বলে জানান পরিবারের সদস্যরা। এদিকে, সৈয়দ আবু নছরের সুস্থতা কামনায় সকলের দোয়া কামনা করেছেন তার স্ত্রী মিসেস নছর। সিলেটের আরেক প্রবীণ নেতা এমএ হক। সিলেট বিএনপির এই মুহূর্তের অভিভাবক তিনি। বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সিলেট জেলার সভাপতি হিসেবে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে তিনি বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সিলেট বিএনপির একজন নিবেদিতপ্রাণ নেতা হিসেবে তাকে চিনেন সবাই। এখনো দলের দুর্দিনে নানা পরামর্শ নিতে নেতারা তার কাছে ছুটে যান। নিজের মতো করে সব নেতাকর্মীকে আগলে রাখেন তিনি। ব্যবসায়ী হিসেবে সিলেটে রয়েছে তার পরিচিত। করোনাকালে সিলেট বিএনপির প্রবীণ এই নেতা অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাকেও মঙ্গলবার বিকালে সিলেটের নর্থইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শরীরে নিউমোনিয়া নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বলে জানিয়েছেন পরিবারের স্বজনরা। তবে তার শরীরে করোনাভাইরাস আছে কি-না তা এখনো জানা যায়নি। তার ছেলে ব্যারিস্টার রিয়াশাত আজিম আদনান জানিয়েছেন, এমএ হকের শরীরে করোনার লক্ষণ প্রকট নয়। তবে নিউমোনিয়া আছে।

শরীর একটু খারাপ করায় নর্থইস্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নমুনা সংগ্রহ করে করোনা টেস্টের জন্য পাঠানো হচ্ছে। তিনি জানান- তার পিতার শারিরীক অবস্থা আগের চাইতে ভালো। এখন জ্বর ছাড়া শরীরে আর কোনো লক্ষণ নেই। এদিকে- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এমএ হকের সুস্থতা কামনা করেছেন সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শামীম সিদ্দিকী। গতকাল এক বার্তায় নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এমএ হকের সুস্থতা কামনা করেন। বার্তায় নেতৃবৃন্দ বলেন, সিলেট বিএনপির অভিভাবক বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ কেন্দ্রীয় বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি হিসেবে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শকে লালন করে রাজপথে থেকে আন্দোলন চালিয়ে গেছেন। পাশাপাশি বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির সকল আন্দোলন সংগ্রামে তার বলিষ্ঠ ভূমিকা ছিল। আমরা এই বর্ষীয়ান নেতার আশু সুস্থতা কামনা করছি। তিনি সুস্থ হয়ে আবারো আমাদের মাঝে ফিরে আসবেন মহান রাব্বুল আল আমিনের কাছে এই প্রার্থনাই করছি। পাশাপাশি নেতৃবৃন্দ মহানগরীর ২৭টি ওয়ার্ডের বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনকে তার আশু সুস্থতা কামনা করে দোয়া করার জন্য অনুরোধ করেন সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শামীম সিদ্দিক

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :195 বার!

JS security