সুনামগঞ্জে এমপি মিসবাহ’র উদ্যোগে ভবন পাচ্ছে ৬ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :- সুনামগঞ্জ -৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বিরোধী দলীয় হুইপ অ্যাডভোকেট পীর মিসবাহ‘র প্রচেষ্ঠায় সুনামগঞ্জ-বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায় ভবন পাচ্ছে ৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সম্প্রতি দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর হতে ৪টি ও শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর হতে “হাওরের শিক্ষা অবকাঠামো উন্নয়ন” প্রকল্পের আওতায় ১ম পর্যায়ে ২টি ভবন অনুমোদন করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়।

জানা যায়, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর এর আওতায় ৩ তলা বিশিষ্ট ৪টি ভবন যার প্রতিটির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে দেড়কোটি টাকার উপরে। এর মধ্যে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার রঙ্গারচর ইউনিয়নের চৌদ্দগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়, গৌরারং ইউনিয়নের হাজী আব্দুল সত্তার মরিয়ম নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার মিয়ারচর পাঁচগাঁও উচ্চ বিদ্যালয় ও ধরেরপার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একটি করে বন্যাশ্রম কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। যা বন্যার সময় বন্যার্তদের আশ্রয়ের পাশাপাশি বিদ্যালয়ে পাঠদানে সহায়ক হবে বলে জানা যায়।

এদিকে  শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে আওতায় প্রায় ৭২ কোটি টাকা ব্যায়ে দুইটি ভবন নির্মাণ করা হবে যার প্রতিটির নির্মাণ ব্যায় ধরা হয়েছে ৩৫ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। যা সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের ইসলামগঞ্জ ডিগ্রি কলেজে একটি ও জয়নগর বাজার হাজী গণিবক্স উচ্চ বিদ্যালয়ে আরেকটি নির্মাণ করা হবে । যথাযত টেন্ডার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কাজ বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ।

এছাড়াও সুনামগঞ্জ বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার ২০ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আরও ১০০ কোটি টাকার ভবন নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। যা আগামী বছরের শুরুর দিকে শেষ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

সুনামগঞ্জ-৪ আসনে শিক্ষা ক্ষেত্রে এমন উন্নয়নের জন্য সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহকে সাধুবাদ জানিয়েছেন দুই উপজেলার বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ। এই উন্নয়নের ধারা আগামীতেও অব্যাহত রাখার আহবান জানান তারা।

সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ বলেন, সুনামগঞ্জ সদর-বিশ্বম্ভরপুর আসনে এ সরকার অজস্র উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করেছে। রাস্তাঘাট,ব্রিজ, অবকাঠামো, বিদ্যুৎ, শিক্ষা ক্ষেত্রে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। যা ইতোপূর্বে কেউ করেনি। সুষম উন্নয়নের এই ধারা আগামীতেও অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্তয় করেন তিনি।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :207 বার!

JS security