হবিগঞ্জে কিশোরী বধুর লাশ পুকুর থেকে উদ্ধার

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :- হবিগঞ্জের পশ্চিম এড়ালিয়ায় কিশোরী বধুর লাশ পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। কিশোরীর পিতা দাবী করছেন তার মেয়েকে হত্যার পর পুকুরে ফেলে দেয়া হয়েছে।
এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কিশোরীর প্রেমিক স্বামী, শ্বাশুড়ি ও জা’কে আটক করা হয়েছে। নিহত কিশোরী হনুফা আক্তার (১৫) ওই গ্রামের সওদাগর মিয়ার মেয়ে। ময়না তদন্ত শেষে হনুফার পিতার নিকট লাশ হস্তান্তর করা হয়। রাতেই দাফন করা হয়েছে ।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, কিশোরী হনুফা আক্তার ওরপে সোনাই (১৫) এর সাথে পাশের ঘরের তারই আপন চাচাতো ভাই বিলাল মিয়া (১৮) এর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এ খবর পেয়ে সওদাগর মিয়া পেয়ে মেয়েকে বারণ করেন। কিন্তু গোপনে এরা প্রেম চালিয়ে যায়। এক পর্যায়ে ৭/৮ মাস হনুফা পালিয়ে গিয়ে বিলালকে বিয়ে করে। সূত্র জানায়, বিয়ের পর থেকে স্বামীর পরিবারের লোকজন হনুফাকে মেনে নিতে পারেনি। প্রায়ই ঝগড়া বিবাদ হয়।

গত বৃহস্পতিবার ভোরে ফজরের নামাজের জন্য পশ্চিম এড়ালিয়া জামে মসজিদে মুসল্লিরা গেলে মসজিদের পুকুরে একটি মৃতদেহ ভাসতে দেখেন। তারা বিষয়টি সদর থানায় অবহিত করলে ঘটনাস্থলে ছুটে যান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রবিউল ইসলাম ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাসুক আলী। পুলিশ মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হনুফার স্বামী বিলাল মিয়া (১৮), শাশুড়ি আব্দুল হাসিমের স্ত্রী চান্দি বেগম (৪৫), জাঁ রাজু মিয়ার স্ত্রী খোদেজা বেগমকে (১৬) আটক করা হয়।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাসুক আলী জানান, মেয়েটির শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

....সংবাদটি সম্পর্কে মন্তব্য করুন

মন্তব্য

সংবাদটি পড়া হয়েছে :216 বার!

JS security