ইতিহাস

নিলামে বিক্রি হলো প্রিন্সেস ডায়ানার গাড়ি

নিলামে বিক্রি হলো প্রিন্সেস ডায়ানার গাড়ি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: এক সময় ব্রিটিশ রাজবধূ প্রিন্সেস ডায়ানার ব্যবহার করা একটি ফোর্ড এসকর্ট গাড়ি মঙ্গলবার নিলামে বিক্রি হয়েছে। দক্ষিণ আমেরিকার একটি মিউজিয়াম গাড়িটি ৫২ হাজার ৬৪০ পাউন্ড বা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৬১ লাখেরও বেশি টাকা দিয়ে গাড়িটি কিনে নিয়েছে। ১৯৮১ সালের মে মাসে সিলভার রংয়ের গাড়িটি প্রিন্সেস ডায়ানাকে ইনগেজমেন্ট উপহার হিসেবে দিয়েছিলেন প্রিন্স চার্লস। এর দুই মাসের মাথায় সেন্ট পল ক্যাথেড্রালে তাদের ঐতিহাসিক বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। ১৯৮২ সালে ছয় হাজার পাউন্ডে গাড়িটি কিনে নেন একজন অ্যান্টিক ডিলার। মঙ্গলবার গাড়িটি আবারও নিলামে তোলা হয়। সাউথইস্ট ইংল্যান্ডের রিমান ড্যানসি অকশন হাউজের লুইস রাবেট জানান, টেলিফোনে নিলামে অংশ নিয়ে গাড়িটি কিনে নিয়েছেন দক্ষিণ আমেরিকান একটি মিউজিয়াম। গাড়িটি এখন সেখানে পাঠানো হবে। তিনি বলেন, ‘প্রাক-নিলামেই গাড়িটি নিয়ে আগ্রহ দেখা যায়।’ গাড়িটিতে এখনও অরিজিন
প্রিন্স ফিলিপ- রানী এলিজাবেথের প্রেমের গল্প

প্রিন্স ফিলিপ- রানী এলিজাবেথের প্রেমের গল্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রিন্স ফিলিপ ও রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের প্রেমের গল্পটা রাজকীয় তো বটেই, চমকও কম নয়। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্ট, সিএনএন, বিবিসি অবলম্বনে পাঠকদের জন্য তুলে ধারা হলো রাজকীয় এক প্রেমের গল্প। রানি এলিজাবেথ ছিলেন ষষ্ঠ কিং জর্জের কন্যা। আর প্রিন্স ফিলিপ গ্রিসের ক্ষমতাচ্যুত রাজার ভাইপো। এলিজাবেথ থাকতেন রাজপ্রাসাদে। আর ফিলিপের পরিবার ছিলেন নির্বাসনে। ১৯৪৭ সালে দুজন বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। ৭৪ বছরের বিবাহিত জীবনে রানি এলিজাবেথ বেশির ভাগ সময়ই ব্যস্ত থেকেছেন রাজকীয় দায়িত্ব পালনে। রানির সেই জীবনের সঙ্গে অনেকটাই মানিয়ে চলতে হয়েছে প্রিন্স ফিলিপকে। দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের খবরে বলাহয়, ১৯৩৯ সালে প্রিন্স ফিলিপ ও রানি এলিজাবেথের প্রথম দেখা। সে সময় এলিজাবেথ ছিলেন ১৩ বছরের কিশোরী। ১৮ বছরের ফিলিপ তখন ব্রিটানিয়া রয়্যাল নেভাল কলেজের ক্যাডেট। তবে সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা

জার্মানিতে নারী মুয়াজ্জিনের আজান-ইমামতীতে আদায় হলো নামাজ

জার্মানিতে নারী মুয়াজ্জিনের আজান-ইমামতীতে আদায় হলো নামাজ। বার্লিনের ‘ইবনে রুশদি গ্যাটে’ মসজিদে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে ছিলো ভিন্নধর্মী এ আয়োজন। চার বছর আগে, মসজিদটি নির্মাণ করেন সেয়রান আতিস। তিনি বলেন, ইসলামের অন্যতম স্তম্ভ- নামাজ আদায়ের সময় তিনি বহুবার হয়রানির শিকার হয়েছেন জার্মানিতে। সেই বাধা ভাঙ্গতেই তার এ উদ্যোগ। নারীদের অধিকার এবং সমতার জন্যে ৫৭ বছর বয়সী এই আইনজীবী করছেন লড়াই। যার ধারাবাহিকতায়, মসজিদটিতে নারী-পুরুষ উভয়েই নামাজ আদায় করতে পারেন। আতিসের বিশ্বাস, প্রার্থণার সময় আল্লাহ নারী-পুরুষে ভেদাভেদ করেন না; তাহলে সমাজে কেনো এই বিভক্তি?

আজকের দিনে ইতিহাসের উল্লেখযোগ্য ঘটনা (০১ মার্চ )

প্রতিটা দিন সময়ের হিসাবে ২৪ ঘন্টা, সময়টা অতি অল্প । আবার কোন ঘটনা ঘটার জন্য সময় যথেষ্ট অনেক । বছরের প্রতিটি দিনেই ঘটে চলেছে নানা উল্লেখযোগ্য ঘটনা। অনেকের আজ জন্মবার্ষিকী আবার কেউ মৃত্যুবরণ করেছিলেন এই দিনেই।  নিম্নে ইতিহাস থেকে আজকের দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য কিছু অবতারণা -   ইতিহাসের পাতায় আজকের দিনের ঘটনা-   ১৪৯৮ - ভাস্কো দা গামা মোজাম্বিক আবিষ্কার করেন। ১৬৪০ - ভারতের কাছ থেকে ব্রিটিশদের মাদ্রাজে বাণিজ্য কেন্দ্র স্থাপনের অনুমতি লাভ। ১৮১১ - মামলুকদের পরাস্ত করে মোহাম্মদ আলীর মিশরের ক্ষমতারোহন। ১৮১৫ - এলবা দ্বীপ থেকে পলায়নের পর নেপোলিয়ন বোনাপার্টের ১০০ দিনের শাসনকাল শুরু হয়। ১৮১৯ - শ্রীরামপুরে উইলিয়াম কেরি, জোশুয়া মার্শম্যান ও উইলিয়াম ওয়ার্ড “ব্যাংক অফ শ্রীরামপুর” প্রতিষ্ঠা করেন। ১৮৪৮ - ভারতে ভূমিকম্পে ১ হাজার জনের প্রাণহানি। ১৯০১ - অস্ট্রেলিয়ান সেন

ফিনল্যান্ডে মুসলমানদের জীবন-জীবিকা

পূর্ব ইউরোপের অন্যতম রাজনৈতিক স্থিতিশীল ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ দেশ ফিনল্যান্ড। এ দেশে ক্রমে মুসলমানদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৬০ হাজারে। তাদের মধ্যে বেশির ভাগ অভিবাসী হলেও ‘ভূমিপুত্র’দের মধ্যে মুসলমানদের সংখ্যা নেহায়েত কম নয়। ১৮৭০ থেকে ১৯২০ সালের মধ্যে তাতার মুসলিম জনগোষ্ঠী প্রথম সৈনিক ও ব্যবসায়ী হিসেবে ফিনল্যান্ডে আগমন করেছিল। পরবর্তীতে উত্তর আফ্রিকা, মধ্য এশিয়া ও সাবেক যুগোস্লাভিয়া থেকে মুসলমানরা এখানে এসে আলাদা কমিউনিটি গড়ে তোলেন। সংখ্যায় কম হলেও মুসলমানদের শিকড় এ দেশের গভীরে প্রোথিত। মুসলমানদের দৈনন্দিন জীবনাচার, সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড, সামাজিক বন্ধন ও ধর্মীয় ঐতিহ্যে মুগ্ধ হয়ে স্থানীয় বহু লোক ইসলাম কবুল করেন। এক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, সাম্প্রতিককালে প্রতি বছরে ইসলাম গ্রহণকারীর সংখ্যা গড়ে এক হাজার, যাদের মধ্যে মহিলার সংখ্যা বেশি। পরে তারা মুসলমান ছেলেদের ব

শাবিপ্রবির ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত হয়েছে। ১৯৯১ সালে যাত্রা শুরু করা বিশ্ববিদ্যালয়টি আজ রবিবার দীর্ঘ ৩০ বছর পেরিয়ে ৩১ বছরে পদার্পণ করেছে। প্রতিবছর ১৩ ফেব্রুয়ারি (১ ফাল্গুন) বিশ্ববিদ্যালয়টির দিবস উদযাপন করা হলেও বাংলা দিনপঞ্জিকা পরিবর্তন হওয়ায় গত বছর থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারিতে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন করে আসছে কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠাবাষির্কী উপলক্ষ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রবিবার সকাল ১০ টায় জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয় পতাকা উত্তোলন এবং বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ও শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উদযাপন কমিটির সভাপতি ড. রাশেদ তালুকদার। তবে প্রতিবছর বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালি ও কেক কাটার আয়োজন করা হলেও এবার করোনা পরিস্থিতির কারণে তা হয় নি। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন

সুনামগঞ্জে তারুণ্যের বসন্ত উৎসব

সুনামগঞ্জে ঋতুরাজ বসন্তকে বরণ করতে জেলা শহর জুড়েই তারুণ্যের বসন্ত উৎসবে মেতেছিলেন তরুণ-তরুণীরা। জেলার তাহিরপুর উপজেলাধীন বৃহৎ শিমুল বাগানে সকাল থেকে তারুণ্যের বসন্ত উৎসব পালিত হয়। শত শত তারুণ্যের উচ্ছ্বাস প্রাণবন্ত করে পুরো এলাকা। তরুণ তরুণীর আগমনে এক অন্য রকম পরিবেশ বিরাজ করে। চলে যার যার মত বসন্ত বরণের প্রাণান্তকর চেষ্টা। শিমুল বাগানের ফুল ফুটতে শুরু করার কারণে বসন্তের আমেজ অনেকটাই টের পাওয়া যায়। চলে নাচ,গান আর হৈ হুললোর। যেন এক প্রাণের মেলা। এছাড়া ঋতুরাজ বসন্তকে বরণ করতে বিকালে শহরের রিভারভিউয়ে সুরমাপাড়ে তারুণ্যের বসন্ত উৎসবের আয়োজন করেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নোমন বখত পলিন। উৎসব উপলক্ষ্যে বর্ণিল সাজে সাজানো হয় বালুরমাঠের সুরমাপাড়।বটমূলের মঞ্চ থেকে পরিবেশিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বাসন্তী সাজে নিজেকে সাজিযে উৎসব উপভোগ করতে বিপুলসংখ্যক দর্শনার্থী

পুরনো সেই কারাগারে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি বিচারপতিদের শ্রদ্ধা

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পুরাতন কারাগার পরিদর্শন করলেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও জাজেজ কমিটি। সুপ্রিমকোর্টের মুখপাত্র ও বিশেষ কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাইফুর রহমান বাসস’কে আজ এ কথা জানান। বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপনে গঠিত সুপ্রিমকোর্ট জাজেজ কমিটির সভাপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এবং জায়েজ কমিটির সদস্য আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান ও বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এম, ইনায়েতুর রহিম, বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথ, বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন, বিচারপতি জে.বি.এম হাসান, বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান এবং বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলাম জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনে রাজধানীর উমেষ দত্ত রোডে পুরাতন কারাগার আজ পরিদর্শন করেন। এ সময় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে জাজেজ কমিটি পুরাতন কারাগারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জমিদার বাড়িতে সবজি চাষ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জমিদার বাড়িতে সবজি চাষ

গ্লোবাল সিলেট ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রীর ৩১দফা নির্দেশনা মোতাবেক করোনা পরিস্থিতিতে সম্ভাব্য খাদ্যঘাটতি মোকাবেলায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর হরিপুর জমিদার বাড়ির আশেপাশে অব্যবহৃত ও পরিত্যক্ত খালি জায়গায় শাকসবজি চাষের উদ্যোগ নেওয়া হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রত্নস্থলের আশেপাশে পড়ে থাকা অব্যবহৃত জায়গায় ডাটা, লালশাক, পুঁইশাক, ঢেরশ, চালকুমড়ো, মিষ্টি কুমড়, ঝিংগা, ধুন্দল, বরবটি চাষ করা হয়েছে। মহামারী করোনার এই সংকট কালীন সময়ে দেশের উৎপাদন বৃদ্ধিতে অবদান রাখার স্বার্থে নিজ দায়িত্ত্বের পাশাপাশি স্বেচ্ছাশ্রমে তেভাগা নীতিতে চাষকৃত এসব শাকসব্জির একটি অংশ স্থানীয় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে বিতরণ, একটি অংশ চাষাবাদের সাথে সম্পৃক্ত কর্মচারীদের মধ্যে বিতরণ এবং অবশিষ্ট অংশ বিক্রি করে উৎপাদন ব্যয় করা হয়। গত ২৭ জুলাই তেভাগা নীতিতে উৎপাদিত শাকসব্জি উপকারভোগী স্থানীয় দরিদ্র জনগোষ্ঠী, প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের কর্মচারীদের

আজ ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস

গ্লোবাল ডেস্কঃ-  আজ ৭ জুন ঐতিহাসিক ছয়-দফা দিবস পালিত হচ্ছে। ১৯৬৬ সালের এদিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ ৬-দফা দাবির পক্ষে দেশব্যাপী তীব্র গণআন্দোলনের সূচনা হয়। এই দিনে আওয়ামী লীগের ডাকা হরতালে টঙ্গী, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জে পুলিশ ও ইপিআররে গুলিতে মনু মিয়া, শফিক ও শামসুল হকসহ ১১ জন বাঙালি শহীদ হন। এরপর থেকেই বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আপসহীন সংগ্রামের ধারায় ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের দিকে এগিয়ে যায় জাতি। পরবর্তী সময়ে ঐতিহাসিক ৬-দফাভিত্তিক নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনই ধাপে ধাপে বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামে পরিণত হয়। যার কারণে ৭ জুনকে ৬-দফা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে তারা ৬ দফা দাবি বাস্তবায়নের জন্য যারা জীবন দিয়েছেন তাদের স্মৃতির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানান। এ উপলক্ষে আওয়াম
JS security