মৌলভীবাজার

জুড়ীতে ধাত্রীর বিরুদ্ধে প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার, জুড়ী :  মৌলভীবাজারের জুড়ীতে এক ধাত্রীর বিরুদ্ধে প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। ধাত্রী জুলেখা বেগমের ভুল চিকিৎসায় প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন প্রসূতির স্বামী জয়নুল ইসলাম ।‌ এ ঘটনা উপজেলায় টক অব দা টাউনে পরিণত হয়েছে।‌ অনুসন্ধানে জানা যায়, ২৯ জুলাই বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের পশ্চিম শিলুয়া গ্রামের মৃত: সমছ উদ্দিনের ছেলে জয়নুল ইসলামের স্ত্রী রুনা বেগমের (১৯) প্রথম সন্তান প্রসবের ব্যাথা শুরু হলে ধাত্রী জুলেখা বেগম চার হাজার টাকার চুক্তিতে প্রসূতির বাড়িতে যান। ‌ সারারাত চেষ্টা করেও ডেলিভারী করাতে না পারায় প্রসূতির স্বামী জয়নুল ইসলাম বার বার তার স্ত্রীকে হাসপাতালে নিয়ে যাবার কথা বললেও ধাত্রী জুলেখা তার কথায় কর্ণপাত না করে বাড়িতেই নরমাল ডেলিভারি হবে বলে আশ্বস্ত করেন। ‌ প্রসূতির স্বামী জয়নুল ইসলাম জানান, রাত থেকে ভো

জুড়ীতে করোনা আক্রান্ত সাংবাদিক মনিরুলের বাড়ীতে ভাইস চেয়ারম্যান

মোস্তাফিজুর রহমান, জুড়ী : মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার জুড়ী রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি, জুড়ী প্রেসক্লাবের (১৯৯৮) সংস্কৃতি ও সাহিত্য সম্পাদক ও সিলেট বিডি নিউজ ২৪ লাইভের সম্পাদক করোনা আক্রান্ত সাংবাদিক মনিরুল ইসলামের বাড়ীতে উপহার নিয়ে হাজির হন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিংকু রঞ্জন দাশ। বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) দুপুরে তিনি উপহার হিসেবে ফলমূল নিয়ে করোনা আক্রান্ত সাংবাদিক মনিরুল ইসলামের বাসায় যান। এ সময় তিনি তাঁর শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন এবং কিছু সময় সেখানে অবস্থান করেন।‌ সাংবাদিক মনিরুল ইসলাম, গত ১৯ তারিখ থেকে করোনা আক্রান্ত হয়ে বাসায় আইসোলেশনে আছেন। তিনি বলেন, আজ আমাকে দেখতে ও শারীরিক অবস্থা জানতে আমার বাসায় উপহার নিয়ে হাজির হন জুড়ী উপজেলা পরিষদের সম্মানিত ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক রিংকু রঞ্জন দাশ। আমি
সিলেটের পরিস্থিতি ভয়াবহ

সিলেটের পরিস্থিতি ভয়াবহ

সিলেটের করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহতার দিকে যাচ্ছে। গতকাল মারা গেছেন ১৭ জন। নতুন শনাক্ত হয়েছেন ৭৩৬। স্বাস্থ্য বিভাগের পরিসংখ্যানই বলছে; পরিস্থিতি ভালো না। দিন দিন খারাপের দিকে যাচ্ছে। বাস্তব চিত্র আরও ভিন্ন। উপসর্গ নিয়ে মারা যাচ্ছে অনেক। তাদের কোনো পরিসংখ্যান নেই। হাসপাতালে রোগী ভর্তির জায়গা নেই। গাড়িতে, এম্বুলেন্সে মারা যাচ্ছে রোগী। তাদের হিসাবও উঠছে না স্বাস্থ্য বিভাগের পরিসংখ্যানে। এ অবস্থায়ও চিকিৎসার পরিধি বাড়ানো হচ্ছে না। আর বাড়াতে হলেও সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। ফলে আইসিইউ সংকটে মারা যাওয়া রোগীদের জীবন বাঁচাতে এখনই বিকল্প ব্যবস্থারও সুযোগ নেই। দিন দিন সিলেটের করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ অবস্থার দিকে ধাবিত হওয়ায় স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা চিন্তিত। স্বাস্থ্য বিভাগের হিসাবমতে- সিলেটে চলতি মাসে ২৭ দিনে পৌনে ২শ’ করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। শনাক্ত হয়েছেন ১২ হাজারের মতো রোগী। আক্রান্তদের মধ্যে প্রা

জাকিরের ফ্রী হিউম্যান অক্সিজেন সার্ভিসে ২০ টি সিলিন্ডার যুক্ত

মোস্তাফিজুর রহমান, জুড়ী : বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ কমিটির সদস্য এস এম জাকির হোসাইনের উদ্যোগে জুড়ী এবং বড়লেখা উপজেলায় ফ্রি অক্সিজেন সেবায় নতুন করে ২০ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার যুক্ত করা হয়েছে। বুধবার (২৮ জুলাই) নতুন ২০ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদানের মধ্য দিয়ে এ সেবার উদ্বোধন করেন এস এম জাকির হোসাইন। এ সময় তিনি বলেন, জুড়ী বড়লেখার মানুষের শ্বাসকষ্ট, করোনা রোগী সহ গরীব মানুষের সুবিধার্তে গত মে মাসের ২৩ তারিখ ফ্রি অক্সিজেন সেবার কার্যক্রম শুরু করি। বর্তমান এই সময়ে ধনী গরিব অনেক মানুষ টাকা দিয়ে অক্সিজেন পাচ্ছে না, জুড়ী বড়লেখায় যারা এর দায়িত্বে রয়েছেন তারা ১৭ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার দিয়ে সংকুলান দিতে পারছে না। নতুন করে মোট ২০ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার আগের এগুলোর সাথে যুক্ত হলে কেউ আমাদের সেবা থেকে বঞ্চিত হবে না আশা করি।   এস এম জাকির হোসাইন বলে
উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ তালিকায় যুক্ত হতে পারে জুড়ী

উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ তালিকায় যুক্ত হতে পারে জুড়ী

মোস্তাফিজুর রহমান, জুড়ী : মৌলভীবাজারের জুড়ীতে ক্রমেই বেড়ে চলেছে করোনা সংক্রমণ। উপজেলার গ্রামগঞ্জেও দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।‌ এতে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এখনই কঠোর পদক্ষেপ না নেওয়া হলে শিগগিরই করোনার উচ্চঝুঁকিপূর্ণ উপজেলার তালিকায় যুক্ত হবে জুড়ী। করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসনসহ স্বাস্থ্য বিভাগ দিনরাত কাজ করে যাচ্ছে। সর্বশেষ গত (২৬ জুলাই) ২২ জনের মধ্যে ৬ জনের করোনা পজিটিভ আসে। এর আগের দিন ২৫ জুলাই ১২ জনের মধ্যে ৮ জনের করোনা পজিটিভ আসে। ২৪ জুলাই ৩২ জনের মধ্যে ২১ জনের করোনা পজিটিভ আসে। মৌলভীবাজার জেলায় করোনা শনাক্তের জন্য পিসিআর ল্যাব না থাকায় নমুনা সংগ্রহ করে ফলাফল দিতে অনেক দেরি হচ্ছে। জেলায় পিসিআর ল্যাব না থাকায় সিলেট থেকে করোনা রিপোর্ট আসতে ৫-৭ দিন সময় লাগছে। ফলে করোনা পজিটিভ ব্যক্তি নিজের অজান্তে চারদিকে ঘুরে বেড়ানোর ফলে অন্যকে
সিলেটে একদিনে ১৪ মৃত্যুর রেকর্ড, নতুন করে শনাক্ত ৫৬৪

সিলেটে একদিনে ১৪ মৃত্যুর রেকর্ড, নতুন করে শনাক্ত ৫৬৪

  সিলেটে বেড়েই চলেছে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ। সঙ্গে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যা। শেষ ২৪ ঘন্টায় বিভাগে করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা সিলেটে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর সংখ্যা। এসময় বিভাগটিতে নতুন করে আরও ৫৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এতে সিলেটে শনাক্ত ছাড়াল ৩৬ হাজার। আজ সোমবার (২৬ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় পরিচালক ডা. সুলতানা রাজিয়া গণমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  তিনি জানান, সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘন্টায় ১ হাজার ৩৪৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। মোট টেস্টের ৪২.০০ শতাংশই করোনা আক্রান্ত। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ৪১.৮৫ শতাংশ, সুনামগঞ্জে ৪৪.৫৮ শতাংশ, হবিগঞ্জে ৪৩.৭১ শতাংশ এবং মৌলভীবাজারের ৩৫.৬৩ শতাংশ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘন্টায় শনাক্ত ৫৬৪ জন রোগীর মধ্যে ২৪৯ জনই সিলেট জেলার বাসিন্দা। বাকিদের মধ্যে সুনামগঞ্জের ১০৭ জন, হবিগঞ্জের ১৪৬ এবং ৬২ জন
হাবিবা ম্যাডামের পরিবারে  শুধুই কান্না

হাবিবা ম্যাডামের পরিবারে শুধুই কান্না

বড় ভাইয়ের লাশ দেখা নিয়ে শঙ্কায় ছিলেন হাবিবা আক্তার শিল্পি ও তার পরিবার। কিন্তু ভাই তো ভাই-ই। শেষ পর্যন্ত সব শঙ্কা-ভয় দূরে ঠেলে যতটা সম্ভব স্বাস্থ্যনির্দেশনা মেনে করোনায় মারা যাওয়া বড় ভাইকে শেষ বিদায় জানান। কিন্তু আট মাসের ব্যবধানে আজ হাবিবাকেই কেড়ে নিলো প্রাণঘাতী মহামারি। ২০শে জুলাই সন্ধ্যায় সিলেটের শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। অবশ্য ১০ দিন আগে আইসিইউতে হাবিবা যখন শ্বাসযন্ত্রণায় নিদারুণ কষ্টে সেই সময়ে দুনিয়া ছেড়ে যান তার অতি আদরের ছোট ভাই। মৃত্যুর আগে বোনকে দেখার আকুতি ছিল ভাইয়ের। কিন্তু মরণব্যাধি কোভিড-১৯ তাদের দু’জনের মাঝে দুর্ভেদ্য প্রাচীর তৈরি করে ফেলে। ভাই-বোনের সাক্ষাৎ অধরাই থেকে যায়! বলছি করোনায় পরপর তিন সদস্যকে হারানো সিলেটের একটি পরিবারের কথা। যে পরিবারের প্রতিটি মানুষ আপন আলোয় উজ্জ্বল। করোনায় মারা যাওয়া ওই পরিবারের প্রথম ব্যক্তি 'বড় ভাই' মোজতবা
সিলেটে ফের রেকর্ড ৮ জনের মৃত্যু: নতুন শনাক্ত ২৫৩ জন

সিলেটে ফের রেকর্ড ৮ জনের মৃত্যু: নতুন শনাক্ত ২৫৩ জন

সিলেটে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেট বিভাগে করোনাভাইরাসে মৃত্যু হয়েছে আরও ৮ জনের । একই সময়ে সিলেট বিভাগে ২৫৩ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর আগে গত ৮ এপ্রিলের পর ফের ভাইরাসটিতে ৮ জনের মৃত্যু একদিনে দেখল সিলেট। যা বিভাগে একদিনের সর্বোচ্চ মৃত্যু। আজ সোমবার (৫জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় পরিচালক ডা. সুলতানা রাজিয়া গণমাধ্যমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘন্টায় শনাক্ত ২৫৩ জন রোগীর মধ্যে ১১৭ জনই সিলেট জেলার বাসিন্দা। বাকিদের মধ্যে সুনামগঞ্জের ২১ জন, হবিগঞ্জের ৫৪ জন এবং মৌলভীবাজারের ৬১ জন রয়েছেন।  গত ২৪ ঘন্টায় সিলেটে ১০৬ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন। সুস্থদের মধ্যে ৮৫ জন সিলেট জেলার, হবিগঞ্জের ৬ এবং ১৪ জন মৌলভীবাজার জেলার বাসিন্দা। সূত্র জানায়, সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত সিলেট বিভাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২
ভূমিকম্পে বদলে যেতে পারে সিলেটের মানচিত্র

ভূমিকম্পে বদলে যেতে পারে সিলেটের মানচিত্র

ভূমিকম্প ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চল সিলেট। ফলে এখানে ভূমিকম্প নিয়ে আতঙ্ক রয়েছে। গত ৯ দিনের ব্যবধানে ৮ দফা ভূমিকম্প এই আতঙ্ক আরও বাড়িয়ে তুলেছে। তবে আতঙ্ক থাকলেও নেই সচেতনতা। সিলেটে কোনো নিয়ম নীতির না মেনেই গড়ে উঠছে একের পর এক বহুতল ভবন। মানা হচ্ছে না বিল্ডিং কোড। জলাশয় ভরাট- টিলা কাটা চলছে অহরহ। ফলে এই অঞ্চলে বড় ভূমিকম্প হলে ক্ষয়ক্ষতির ঝুঁকি বেড়েই চলছে। সাম্প্রতিক কয়েকটি ছোট ছোট ভূমিকম্পের কারণে বড় ধরণের ভূমিকম্পের শঙ্কার কথাও প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তিন বছর আগের এক জরিপে দেখা গেছে, সিলেটে এক লাখ বহুতল ভবন রয়েছে। এসব ভবনের ৭৫ শতাংশ ছয়তলা বা তার চেয়ে বেশি। তবে সিলেট সিটি করপোরেশনের হিসাবে হোল্ডিংই আছে ৭০ হাজার। বিশেষজ্ঞদের মতে, সিলেটে রিখটার স্কেলে ৭ মাত্রার ভূমিকম্প হলে এ অঞ্চলের প্রায় ৮০ ভাগ স্থাপনা ধসে পড়তে পারে। এতে প্রাণ হ
সাংবাদিক লিটনের ‘আত্মহত্যা’

সাংবাদিক লিটনের ‘আত্মহত্যা’

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজার থানাধীন গঙ্গানগর চক গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে নিজামুল হক লিটন নাম এক সাংবাদিকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (৪ জুন) সকালে মোগলাবাজার থানা পুলিশ লিটনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে নিজ বসতকক্ষে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে নিহতের পরিবার জানায়। পুলিশেরও ধারণা  নিজামুল হক লিটন আত্মহত্যা করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করে মোগলাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামসুদ্দোহা পিপিএম জানান,  ধারণা করা হচ্ছে সাংবাদিক লিটন আত্মহত্যা করেছেন। তবুও পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। ময়নাতদন্তের জন্য তার লাশ সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে,  বৃহস্পতিবার রাতের খাবার খেয়ে সবাই যার যার ঘরে চলে যাই। রাত ৩টার দিকে নিজাম
JS security